প্রথম দফায় আসা ৩০ কোটি ভ্যাকসিন পাবে কারা কারা?

0
Who will be vaccinated in the first phase?
প্রথমে কারা অগ্রাধিকার পাবে ভ্যাকসিনের

হাজার সংবাদ ডেস্ক: বহুদিন ধরে বিভিন্ন দেশে করোনার ভ্যাকসিন প্রস্তুতির কাজ শুরু হয়েছে কোথাও বা প্রথম ট্রায়াল’ কোথাও দ্বিতীয় ট্রায়াল’ আবার কোথাও বা তৃতীয় ট্রায়াল’ চলছে। তার মধ্যে রয়েছে ভারত। ভারতের বিভিন্ন ট্রায়াল এর মাধ্যমে করোনার ভ্যাকসিন এর জন্য জোরদার কাজ চলছে। বিভিন্ন ভাবে বিভিন্ন রকম প্রথম থেকে এখন পর্যন্ত দুটো ট্রায়াল শেষ হয়েছে এবং ভারতে তৃতীয় ট্রায়াল’ চলছে। কেন্দ্র সরকারের কথা অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে সেই তৃতীয় ট্রায়াল’ শেষ হবে সম্ভবত ডিসেম্বরের শুরুতে কিংবা নভেম্বরের শেষে। তার পরেই জানা যাবে তৃতীয় ট্রায়ালের কতটা সফলতা পেয়েছে ভারতের এই ভ্যাকসিন।

আর এর মধ্যেই কেন্দ্র সরকারের নিয়ম অনুযায়ী শুরু হয়ে গেছে প্রায়োরিটি বেনিফিসারী অর্থাৎ এই ভ্যাকসিন তৈরি হয়ে গেলে সেই ভ্যাকসিন কাদেরকে আগে দেওয়া হবে। প্রথমে দফায় ৩০ কোটি ভ্যাকসিনের ডোজ বের করা হচ্ছে। এই ৩০ কোটির মধ্যে প্রথম কারা কারা পাবে এই ভ্যাকসিন তাই নিয়ে কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে গণনা শুরু হয়েছে এবং তার কাজ অনেকটাই এগিয়েছে। ভারতবর্ষে ১৩০ কোটি জনসংখ্যা আর সেখানে শুধুমাত্র প্রথম দফায় ৩০ কোটি ভ্যাকসিন ডোজ আসছে। আর তাতে কারা কারা প্রথম দফায় করোনার ভ্যাকসিন পাবে তা নিয়েও গণনা শুরু হয়েছে।

সেই প্রথম দফায় ভ্যাকসিন এর জন্য রয়েছে স্বাস্থ্যকর্মী ডাক্তার। এছাড়াও বয়স্ক মানুষরা। কেন্দ্রের তরফ থেকে বিস্তারিত ভাবে তারা জানিয়েছে যে স্বাস্থ্য কর্মী এবং ডাক্তাররা রয়েছে তারা অগ্রাধিকার পাবে এই ভ্যাকসিনের এছাড়াও পঞ্চাশের উর্ধে বয়স রয়েছে যারা তারা সবাই পাবে এই ভ্যাকসিন এবং পঞ্চাশের নিচে যে সমস্ত ব্যক্তিরা কোমর্বিডিটি আছে তাদেরকে দেওয়া হবে। এছাড়াও রয়েছে পুলিশ কর্মী এবং সাফাই কর্মী। তার মধ্যে হিসেব করে দেখা গেলে বেশ ককিছু ভ্যাকসিন বাঁচবে কিন্তু তার মধ্যে যারা নতুন ট্রেনিংয়ে রয়েছে সে সব ডাক্তার অর্থাৎ হাউসকিপিং করছে যে সমস্ত ডাক্তাররা তাদেরকেও এই লিস্টের মধ্যে রাখলে তাহলে 30 কোটি ভ্যাকসিনের অনেকটাই কম পড়বে।

কেন্দ্র সরকারের হিসেব অনুযায়ী প্রথম দফার ভ্যাকসিন এর মধ্যে ডাক্তাররা রয়েছে ৫০ থেকে ৬০ লাখ। ৫০ বছরের উর্ধ্বে যাদের বয়স রয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছে ২৬ কোটি এছাড়াও রয়েছে ফ্রন্টলাইন কর্মী মানে পুলিশ কর্মী এবং সাফাই কর্মী ২ কোটি। বেশ কিছু ভ্যাকসিন ৩০ কোটির মধ্যে ও তার মধ্যে আবার হাউস কেপিং এবং যারা এখন ট্রেনিংপ্রাপ্ত তাদের জন্য রয়েছে। যাদের কোমরবিডিটি আছে তারাও রয়েছে এই তালিকায়।

কেন্দ্র সরকারের নিয়ম অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে সব থেকে আগে দরকার স্বাস্থ্যকর্মীদের কারণ তারা প্রথম থেকে মানুষের জন্য যুদ্ধ করে গেছে। তারা করোণা পরিস্থিতিতে নিজের বাড়ি ভুলে তারা যুদ্ধ করেছে মানুষের জন্য। তার জন্যই তাদের আগে ভ্যাকসিন দরকার কারণ তারা যদি ভালো না থাকে তাহলে মানুষের সেবা করবে কে? তার জন্যই স্বাস্থ্যকর্মীদের তো অবশ্যই দরকার এবং স্বাস্থ্য কর্মীদের সাথে যারা যুক্ত রয়েছে যারা তাদেরও দরকার এই ভ্যাকসিন। প্রথম দফায় এরকমভাবে ভ্যাকসিন বিতরণের কথা জানানো হয়েছে তারপরে আস্তে আস্তে কিভাবে কিরকম কি নিয়মে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে এবং তারা অগ্রাধিকার পাবে দ্বিতীয় দফায় তা পরে জানানো হবে। এখন প্রথম দফার গণনা শুরু যারা রয়েছে। যদিও কাজ এখনো চলছে তবে বাকিটা পরের কথা।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন