১৮ বছরের উপরে ভ্যাকসিন পেতে গেলে মানতে হবে সরকারের বিধিনিষেধ! কি কি নিয়ম জারী করেছেন কেন্দ্র সরকার

0
vaccination start from 18 years above
১৮ বছরের উরধে দেওয়া ভাক্সিনের জন্য নাম নথিভুক্ত করান

হাজার সংবাদ ডেস্ক: ১৮ বছর থেকে ৪৫ বছর বয়সীদের করনা ভ্যাকসিন দিতে গেলে কি কি দরকার এবং কেন্দ্র সরকারের থেকে কি কি বিধিনিষেধ দেওয়া হয়েছে এবং কি কি নথিভুক্তকরণ করানো হয়েছে তা একবার জেনে নেওয়া উচিত কারণ প্রত্যেক ১৮ বছর অর্থাৎ প্রাপ্তবয়স্ক ছেলে মেয়ে থেকে শুরু করে যাদেরকে এই ভ্যাকসিন এর আওতায় আনা হচ্ছে। পহেলা মে থেকে তাদের জন্য এই ভ্যাকসিন কতটা গুরুত্বপূর্ণ এবং এই ভ্যাকসিন এর জন্য কি কি নিয়ম মানতে হবে এবং কিভাবে সহজ পদ্ধতিতে এই কাজ করা যাবে তার জন্য অনেক নিয়ম কানুন দেওয়া হয়েছে শুধুমাত্র যারা ভ্যাকসিন নেবে তাদের জন্য নয় যারা ভ্যাকসিন দেবে অর্থাৎ স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য এবং স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জন্য অনেক নিয়ম বেঁধে দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। যাতে অনেক সুবিধা এবং ভিড় এড়িয়ে এবং সঠিক মাধ্যমে নেওয়া যায় সেই নিয়ম গুলি কি কি?

করোনা কালে নাজেহাল মানুষ এবং যখন শুরু হলো ৪৫ থেকে ৬০ পর্যন্ত বছর বয়সদের করোনার ভ্যাকসিন তখন দেখা গেল স্বাস্থ্যকেন্দ্র যথাযথ ভিড় এবং সেই ভিড়ের জন্য আরও করণা সংক্রমণ বাড়ার সম্ভবনা থাকে কিন্তু এবারে আর তা নয় ১৮ থেকে ৪৫ বছর প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য যে ভ্যাকসিনেশন শুরু করা হচ্ছে তার জন্য কেন্দ্র সরকারের এক নতুন পদ্ধতি চালু হয়েছে সেখানে আগে আপনার নাম নথিভুক্ত করতে হবে আপনার ফোন থেকে এই অ্যাপ ডাউনলোড করে সেখানে আপনি আপনার নাম নথিভুক্ত করা এবং আপনার নাম নথিভুক্ত করার পর আপনার ফোনে ম্যাসেজ আসবে যেদিন আপনার ভ্যাকসিনেশনের ডেট দেওয়া হবে সেইদিন আপনি চলে যাবেন আপনার স্বাস্থ্য কেন্দ্রে তা না হলে আপনি এই মেসেজ না পেলে স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গিয়ে অযথা ভিড় বাড়াবেন না।

দ্বিতীয়তঃ জানানো হয়েছে যে আপনি যদি ভ্যাকসিন নিতে চান তাহলে আপনার ফোনে আসা মেসেজ দেখে যাবেন তার জন্য কার্যকরী ভূমিকা নিতে হবে স্বাস্থ্যকেন্দ্র গুলিকে অর্থাৎ স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যে বসার জায়গা করা হয়েছে অর্থাৎ ভ্যাকসিনেশনের আগে যে বসার জায়গা করা হয়েছে ভ্যাকসিন অধিকারীদের তাদেরকে বসার জায়গা যাতে বড় করা হয় এবং সেখানে যাতে ছাড় ছাড় ভাবে সবাই বসতে পারে তার জন্য এই ব্যবস্থা নেওয়া। ফোনে ম্যাসেজ আসার পর শুধুমাত্র সেই সমস্ত লোক গুলোই সেখানে যাবে এবং তাদেরকে আলাদা আলাদাভাবে বসানোর জায়গা করার জন্য একটা বড় ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে স্বাস্থ্যকর্মীদের কে।

তৃতীয়তঃ যে ভ্যাকসিন নেবে অর্থাৎ যে ব্যক্তির ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে সেই ব্যক্তির আপডেট সাথে সাথেই এই অ্যাপের মাধ্যমে ভরে দেওয়া উচিত অর্থাৎ তার সমস্ত ডেটা এবং তার ভ্যাকসিন হয়ে গেছে সেই তথ্যটি যেন সেখানে আপডেট দেওয়া হয় সাথেসাথেই কোন কাজ পেন্ডিং যাতে না রাখা হয়। তাহলে সেই দিনই জানা যাবে সেই স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে কত ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে এবং পরের দিনের জন্য সেখানে আরো কত ভ্যাকসিনের প্রয়োজন হলে সমস্ত কাজ করতে অনেক সুবিধা হবে এবং মানুষের অনেক হ্যারেজমেন্ট কম হবে ঠিক সেই কারণে এই ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে।

করোনার এড়ানোর মূল লক্ষ্য ভিড় কমানো তাই এই ভিড় এড়াতে গেলে আগে থেকেই গ্রাহকদের ফোনে মেসেজ আসবে এবং সেই মেসেজ দেখে স্বাস্থ্য দপ্তরে যাবে প্রত্যেকটা এলাকা অনুযায়ী এখন আর ভাগ নয় এবার ফোনের মেসেজ অনুযায়ী আপনি সেখানে যাবেন তাই সবার আগে দরকার ২৮ এপ্রিল থেকে এই অ্যাপে আপনার নাম নথিভুক্ত করা। সময় এবং সুযোগ অনুযায়ী আপনার ফোনে ম্যাসেজ আসবে। মেসেজ অনুযায়ী সেই ডেটে পৌঁছে যাবেন আপনার স্বাস্থ্য কেন্দ্রে

যে সমস্ত স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছে তাদের উদ্দেশ্য বলা হয়েছে যারা সেখানে যাবে তাদের জন্য সঠিকভাবে সঠিক ব্যবস্থা নেওয়া উচিত সঠিকভাবে তাদেরকে বসার জায়গা দেওয়া উচিত এবং যাদের আগে থেকেই ইফেক্টের তাদেরকে যেন সেখানে না ঢুকতে দেওয়া হয় বা যদিও ঢোকানো হয় তাদেরকে সঠিক ভাবে জানানো উচিত বা নির্দেশ দেওয়া উচিত যে তাদের ভ্যাক্সিনেশন হবে না তাই টেম্পারেচার টা অবশ্যই যেন দেখা হয় টেম্পারেচার না দেখে কোনভাবেই যেন ভ্যাক্সিনেশন না দেওয়া হয়

প্রত্যেক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে স্বাস্থ্যকর্মীদের কে পরের দিনের লিস্ট তার আগের দিন রাতের মধ্যে পাঠিয়ে দেওয়া উচিত ম্যান হেড অফিসে সেখান থেকে বাকি ভ্যাকসিন পরদিন যদি কোন কম থেকে থাকে সেই ভ্যাকসিন পৌঁছে যাবে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে তাই আগে থেকে সমস্ত আপডেট দেওয়া উচিত এবং এই সমস্ত নির্দেশিকা এবং সমস্ত প্রশ্ন করছে একটা জায়গা থেকে এবং সেই জায়গায় জায়গায় প্রত্যেকটা অফিস এবং প্রত্যেকটা স্বাস্থ্যকর্মী যাতে সঠিকভাবে জানাতে পারে তার জন্য এই অ্যাপের ব্যবস্থা এই অ্যাপের মাধ্যমে যখন আপনি সমস্ত ডিটেলস এবং সেই ডিটেলস দেওয়ার পর আপনার ভ্যাকসিনেশনের ডেট দেওয়া হবে সেই ডেটের পর আপনি ভ্যাকসিন নিলেন এবং ভ্যাকসিন নেওয়ার পরেও আপনার ফোনে ম্যাসেজ আসবে কনফার্মেশন আপনার ভ্যাকসিন হয়ে গেছে এবং আপনার আইডি এছাড়া আইডি এবং নাম নথিভুক্তকরণ করালে দেখিয়ে দেওয়া যাবে যে আপনি শুধুমাত্র ওই ব্যক্তিটি নিয়েছেন আপনার একটা ভ্যাকসিন হয়েছে কিংবা দুটো ভ্যাকসিন হয়েছে এর মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন এই ডিজিটাল মাধ্যম টা খুব দরকারী ডিজিটাল মাধ্যম এর জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের এই নিয়মাবলী প্রত্যেকটা ভ্যাকসিন অধিকারী এবং স্বাস্থ্য কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলা হচ্ছে সঠিক নিয়ম এবং সঠিক ভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর আপনারা এই কাজ সম্পন্ন করুন এবং এই কাজ সম্পন্ন করলে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সবাই ধীরেসুস্থে কাজ সম্পন্ন করতে পারবে এই আবেদন জানিয়েছে কেন্দ্র সরকার কেন্দ্র সরকারের নির্দেশে আশাকরি কোন রকম ভাবে কর্নার সংক্রমণ আসতে পারে এমনটা নয় কিন্তু এখন যে ধরনের সংক্রমণ অনেক বেশি তাই আপনাদের সচেতন থাকতে হবে এবং আপনাদেরকে মানতে হবে এই নিয়ম তাই আপনার ফোনে ম্যাসেজ আসার আগে আপনি কোনোভাবেই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গিয়ে দেখা করবেন না কিংবা আপনি যতক্ষণ না নাম নথিভুক্ত করাচ্ছেন ততক্ষণ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গিয়ে রজতাভের বাড়াবেন না তাই অবশ্যই নথিভুক্তকরণ করেন যদি আপনার ইচ্ছে থাকে এই ভ্যাকসিন নেওয়ার

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন