মেঘলা আবহাওয়ায় দিঘায় জলচ্ছাস! এই মনোরম দৃশ্যে আনন্দে আত্মহারা পর্যটকরা

0
Tourists are overwhelmed with joy seeing the tidal wave in Digha sea
দিঘা তে জলচ্ছাস

হাজার সংবাদ ডেস্ক: পর্যটকদের জন্য খুব শুভ দিন ছিল আজ। খুব ভাল করে মজা করছে দীঘার পর্যটকরা। হালকা বৃষ্টি তার সাথে মেঘাচ্ছন্ন এদিকে বৃষ্টিতে নিজেদের গা ভিচ্ছে আর তার সাথে বাউন্ডারি টপকে আসা সমুদ্রের জলে গা ভিজিয়ে নিচ্ছে সমস্ত পর্যটক। এটা দেখবে হয়ত তারা ভাবেনি কিন্তু প্রকৃতির এত সুন্দর একটা মাহাত্ত্য রয়েছে তারা বোধহয় জানে না। তাই হঠাৎ করে প্রকৃতির এই সুন্দর মনোরম দৃশ্য নিজেদের চোখের সামনে ভেসে উঠবে সেটা খুব অবাস্তব ছিল তাদের কাছে। নিজেদেরকে প্রাণোচ্ছল করে তুলতে সাহায্য করেছে এই মনোরম দৃশ্য। শুধুই যে এই দৃশ্য দেখার তা নয় নিজেকে দিয়ে পুরোপুরি উপভোগ করার মত একটি দৃশ্য এবং সুন্দর একটি মুহূর্ত।

সমুদ্র ব্যারিকেড টপকে জল এসেছে রাস্তায় অর্থাৎ সমুদ্রের প্রাঙ্গণে সমুদ্রের জল উঠছে এবং জলোচ্ছ্বাসে একদম উপর পর্যন্ত বাউন্ডারি টপকে মানুষকে স্নান করিয়ে দিচ্ছে সমুদ্রের জলে। যদিও এই অবস্থায় পর্যটকদের সমুদ্রের নামা বারণ ছিল কিন্তু বারণ থাকলে সমুদ্রে না নামলেও ব্যারিকেডের ওপর বসে রয়েছে বহু মানুষ এই মনোরম দৃশ্য উপভোগ করার সাথে সাথে নিজেদেরকে স্নান করিয়ে নেবে এই জলে। সকাল থেকে মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়া তার সাথে রয়েছে হালকা বৃষ্টি আর এর মধ্যে ফুলে-ফেঁপে উঠেছে সমুদ্রের জল এবং বড় বড় ঢেউ উপচে পড়ছে ব্যারিকেডের উপর। ধাক্কা খাচ্ছে প্রত্যেকটা ব্যারিকেডে এবং সেখানেই বসে রয়েছে সমস্ত পর্যটক। সাধারণত দিঘাতে জলে নামার মুহূর্তটা খুব সুন্দর আর এইজন্যই পর্যটকরা সেখানে যায়। কিন্তু কিছু কিছু পর্যটক এর ভাগ্য অনেক ভালো আজকের মতো এই দৃশ্য দেখতে পেল তারা সবার ভাগ্যে তা হয় না এত বড় ঢেউ আর সমুদ্রের জল একদম চাপাচাপি এরকম বোধহয় সত্যিই খুব কম জনই দেখে। যদিও প্রায় দীঘাতে এরকম অবস্থা তৈরী হয় এটা ঠিক কথা কিন্তু আজকে যেমনটা হবে তার জন্য আগে থেকে কোন নির্দেশ জারি করা হয়নি।

দু-এক দিন ধরে বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টি এবং মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়া দেখে পর্যটকদের বারণ করা হয়েছিল এটা ঠিক কথা কিন্তু সেভাবে কোনো বাধা-নিষেধ জারি করা হয়নি। শুধুমাত্র সমুদ্রে নামা বারণ ছিল কারণ এরকমভাবে সমুদ্রে নামা যথেষ্ট ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে কিছু কিছু সময় এই দৃশ্য সেখানকার মানুষের জন্য অনেক ভয়ানক হয়ে ওঠে। এটা যেমন ঠিক সেভাবে আজকের জন্য পর্যটকরা একই রকমভাবে নিজেদেরকে আনন্দ দিয়েছে এবং প্রকৃতি তাদেরকে আনন্দ দিতে সাহায্য করেছে।

করোনা পরিস্থিতিতে পর্যটক যাওয়া একেবারেই বন্ধ ছিল বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রে। তবে দিঘাতে জুলাই মাস নাগাদ শুরু করা হয়েছিল পর্যটক যাওয়া এবং একের পর এক অল্পস্বল্প হলেও পর্যটক যাচ্ছিল যদিও আজকের আহামরি তেমন কিছু পর্যটক ছিল না সেখানে কারন সপ্তাহের দিন তাই। তবে পর্যটকরা ছিল তারা যথেষ্ট মজা করেছে এই ওয়েদারে এর উপর ভিত্তি করে করোণা পরিস্থিতিতে নেই অনেক পর্যটক। তারা নিজেদের মত ঘুরতে বেরিয়েছে বিভিন্ন জায়গায় কারণ পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে এখন খুলে দিয়েছে সমস্ত গাড়ি যানবাহন সবই চলছে। তাহলে সমস্যা কোথায়? তাই তারা গিয়েছিল নিজেদেরকে একটু মানসিক পরিবর্তন এবং নিজেদের বাইরে ঘোরা এবং পর্যটন কেন্দ্রের আনন্দের অনুভূতি দিতে। আর প্রকৃতি তার সাহায্য করল। মেঘলা আবহাওয়া তার সাথে বৃষ্টি নদীর জল ফুলে-ফেঁপে জলোচ্ছ্বাসের সৃষ্টি হয়েছে। আর সেই জলোচ্ছ্বাসে মানুষ আনন্দে আকুলি-বিকুলি।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন