আজ ৬ মাস পরে খোলা হল আগ্রার তাজমহল! কড়াকড়ি কোভিড প্রোটোকল মানার নিয়মে

0
The Taj Mahal has been opened from today
তাজমহল

হাজার সংবাদ ডেস্ক: বহুদিন পর আবার আজ থেকে খোলা হয়েছে আগ্রা স্মৃতি সৌধ তাজমহল। প্রায় ছয় মাস ধরে বন্ধ ছিল তাজমহল এর আগে এতদিন বন্ধ থেকেছে এইরকম স্মৃতিসৌধ তা মানুষের অতিত বলা যায়। এইরকম ভাবে বন্ধ থাকে নি কখন এতদিন। পুরো ছয় মাস পর আবার খুলল আগ্রার তাজমহল। ২৫ শে মার্চ থেকে বন্ধ হয়েছিল আগ্রার তাজমহল। বিধিনিষেধ মেনেও কোনভাবেই যাত্রীদের যাতায়াত চালু ছিল না তবে এবার সমস্ত বিধিনিষেধ এবং তার সাথে সাথে কোন প্রটোকল এবং সমস্ত দূরত্ব বজায় রাখার পর খোলা হচ্ছে তাজমহল। আজ থেকে তাজমহল খোলা হয়েছে। বিভিন্ন পর্যটকরা যাওয়ার ইচ্ছে থাকলেও তারা যেতে পারত না এতদিন তবে এবার যেতে পারবে।

সারা দিনে পাঁচ হাজার পর্যটক কে ঢুকতে দেওয়ার অনুমতি দিয়েছে আগ্রা তাজমহল। দুপুর ২ টোর আগে পর্যন্ত আড়াই হাজার দর্শক তাজমহল ঢুকবে এবং দুটোর পর আড়াই হাজার পর্যটক প্রবেশ করবে। এই রকম ভাবেই ঠিক করা হয়েছে আর যখন করোনা সংক্রমনের জন্য এইরকম বাড়াবাড়ি হয়েছিল ঠিক তখনই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল তাজমহলে পর্যটক আসা। তার জন্য সেখানকার গাইড এবং ব্যবসায়ী তথা বিভিন্ন দোকানিরা তাদের অর্থ উপার্জনের জায়গাটা একেবারেই বন্ধ হয়ে গেছিল আবার এওখন তাদের মুখে হাসি ফুটেছে।

তবে এই করোনা সংক্রমনের জন্য আগ্রা তাজমহল বন্ধ থাকায় বিভিন্ন রকম ভাবে সমস্যায় হয়েছিল তেমন সংক্রমণ তাকে আটকানো গেছিল। কারণ দিল্লির ওপর থেকে বহু পর্যটক আসে এই তাজমহলে এবং যেহেতু এখানে দিল্লির উপর থেকে আসে দিল্লি তখন করোনা সংক্রমণ ভীষণ বারছিল। আর সেই সংক্রমনের সময় সেখান থেকে যখন আসতেই আগ্রাতে আসে এখানেও সংক্রমণ বাড়ছিল একনাগাড়ে। তাই বন্ধ করে দিতে হয়েছিল আগ্রা তাজমহল। আজকের এই আগ্রা তাজমহল খোলার সাথে সাথে খুলে দাও খুলে দেওয়া হয়েছে আগ্রা ফোরট এবং সেখানে তাদের সমস্ত মানুষ যাতায়াত করতে পারছে যদিও সমস্ত বিধিনিষেধ মেনে।

যেমন হাতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার হ্যান্ড গ্লাভস সাথে রয়েছে এবং কেউ যদি চাই ফেস মাক্স পড়তে পারে। তার সাথে রয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধোয়ার নিয়ম। প্রয়োজন মনে করলে ভালো করে হাত ধুয়ে সেখানে ঢুকতে হবে এই রকমই বেশ কিছু বিধিনিষেধ রয়েছে এবং তার সাথে সাথে অবশ্যই রয়েছে দূরত্ব মেনে চলা। সেখানে সবকিছু মিলিয়ে আগ্রা তাজমহল খোলা হয়েছে। তবে সারাদিনে পাঁচ হাজার পর্যটক ঢোকার নির্দেশ তাতে কি আদৌ কোনো সংক্রমণ কে আটকানো যাবে নাকি বিধিনিষেধ এবং নিয়মাবলীর মধ্যে আড়াই হাজার আড়াই হাজার যে ভাগাভাগি করা হয়েছে তার মধ্যে ঠিকঠাকভাবে বজায় রাখা যাবে সবকিছু তা নিয়েও অনেক প্রশ্ন উঠেছে। যদিও আজ থেকে পর্যটকদের মুখে মুখে হাসির মেজাজ এবং তার সাথে সাথে দোকানী এবং ব্যবসায়ীদের মুখে হাসির রয়েছে সেখানে।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন