ছোটো কিসমিসের গুন অপরিসীম!

0
the role of raisins in the human body
কিসমিসে খেলে দূর হতে পারে অনেক রোগ

হাজার সংবাদ ডেস্ক: শরীর সুস্থ রাখতে গেলে আমরা সাধারণত অনেক নিয়ম মেনে চলি। আমাদের শরীরে বিভিন্ন রকম রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা না থাকায় বিভিন্ন রকম সমস্যা আসতে পারে। আবার কোনো কোনো সময় এই ছোটো সমস্যাগুলো অনেকটা বড় হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু খুব কম অবস্থা থেকে যদি আমাদের শরীর স্বাস্থ্য খুব খেয়াল রাখি তাহলে হয়তো হঠাৎ করে বড় সমস্যায় পড়তে হয় না। কন খাবারে কি গুন আছে সেটা জেনে খেলে অনেক ভালো। নিত্যপ্রয়োজনীয় কিছু জিনিসের অনেক গুন আছে যা আমরা জানিনা।


এই ধরুন আমরা সবাই পায়েস কিংবা কেক এর ছাড়াও বেশ কিছু ফ্রুট কাস্টার্ড এর মধ্যে কিসমিস খেয়ে থাকি কিন্তু সাধারণ ভাবে আমারা কখনই বিচার করি না যে কিসমিস খেলে কি হয় যা আমরা অনেকেই জানি না। কিসমিসের মধ্যে যে ভিটামিন রয়েছে তা আমাদের শরীরে কি প্রতিক্রিয়া তৈরি করে সেটা জেনে রাখা ভালো। কোষ্ঠকাঠিন্য রোগের জন্য কিসমিসের খুব গুণ রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ মানবদেহে মৌরীর অপরিসীম ভুমিকা!

আগে আমরা জানবো কিসমিস খেলে আমাদের শরীরে কি হয়। প্রথমেই বলব কিসমিসের মধ্যে রয়েছে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, ফাইবার, ভিটামিন সি জাতীয় পদার্থ। তার জন্য আমাদের কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে পেট ভালো রাখে হজম শক্তি বাড়ায় এই কিসমিস। অ্যাসিডিটির সমস্যা রয়েছে রাতে একগ্লাস জলে 50 গ্রাম কিসমিস ভিজিয়ে রাখুন এবং সকালবেলা উঠে সেই জল খান দেখবেন আপনার পেটের সমস্যা অনেকটাই দূর হয়েছে। তার সাথে যারা কিসমিস খেতে পছন্দ করেন তারা যদি পারেন জলখাবারে দুটো থেকে চারটি কিসমিস খেলে শরীরে রক্তচাপ কম থাকে। যাদের অ্যানিমিয়া কিংবা রক্তাল্পতা রয়েছে তাদের জন্য খুব উপকারী, শরীরে রক্ত বাড়াতে সাহায্য করে এবং তার সাথে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। যেহেতু কিসমিসে ক্যালসিয়াম রয়েছে। তার জন্য হাড়ের সমস্যাও দূর করে।

দেখবেন অনেক বাচ্ছারা আছে যারা খেলা করছে সারাদিন আর রাতে ঘুমাতে যাওয়ার সময় পায়ের যন্ত্রণা কিংবা হাতের যন্ত্রণা জন্য অস্বস্তি করায় ঘুমতে পারছে না, শুধু কান্নাকাটি করছে তাদের ক্যালসিয়ামের সমস্যা রয়েছে তাই হাত পা ব্যথা করে। তাদেরকে ছোটবেলা থেকেই অল্প করে হলেও কিসমিস খাওয়ান তাহলে তাদের হাড়ের সমস্যা এবং দাঁতের সাথে যুক্ত যেকোনো সমস্যা কমে যাবে। কিসে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন রয়েছে যা শরীরকে মজবুত বানাতে সাহায্য করে। কিশমিশের মধ্যে রয়েছে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল পাওয়ার যার জন্য যেকোনো ক্ষত খুব তাড়াতাড়ি সেরে যায়। যদি কারো শরীরে ক্ষত হওয়া জায়গা তাড়াতাড়ি সারতে না চায় তাহলে আপনারা কিসমিস খান শরীরে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল প্রভাব পড়লে খুব তাড়াতাড়ি যে কোন ক্ষত সেরে যাবে। কিসমিসের চোখের জ্যোতি বাড়ায়। আমাদের চোখের জ্যোতি বাড়ে দৃষ্টিশক্তি প্রখর হয় কিসমিস খেলে। যে সমস্ত মানুষদের হাই প্রেসার অর্থাৎ উচ্চ রক্তচাপ রয়েছে তাদের জন্য কিসমিস ফলদায়ক।

আরও পড়ুনঃ আমাদের শরীরে ছোটো থানকুনি পাতার প্রভাব অপরিসীম!

শুকনো ছোট্ট একটি ফলের এত গুনাগুন আমরা খুব একটা বিচার করে দেখি না। কিন্তু এই ছোট্ট একটি উপাদানের গুরুত্ব আমাদের শরীরে অপরিসীম তাই সারাদিনে তোমরা যদি চাও তাহলে ব্রেকফাস্টের পড়ে কিংবা বিকেল বেলা টিফিন এর পরে অল্প পরিমাণে কিসমিস খেতে পারো। যদি তোমরা চিবিয়ে খেতে পছন্দ না করো তাহলে দুধের মধ্যে ফুটিয়ে সেইটা খেতে পারো তাহলে সেটা তোমাদের শরীরের হজম শক্তি বাড়াবে এবং তার সাথে শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করব দুধ কিসমিস।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন