বন্ধ থাকছে পুজো কার্নিভ্যাল! সংক্রমন ঠেকাতে বাবুঘাটে বিসরজনে থাকবে বহু নিয়ম

0
The Puja Carnival will be closed this year
পুজা কার্নিভ্যাল

হাজার সংবাদ ডেস্ক: নিউ নরমাল নিয়মে রাজ্য থেকে বিভিন্ন রকম ভাবে নিয়ম বেঁধে দেয়া হয়েছে। এবং সেই নিয়মেই চলবে সমস্ত পুজো কমিটি। সেরকম আশ্বাস দিয়েছে কলকাতা সমস্ত বড় বড় বারোয়ারি পুজো কমিটি। অনেক রকম নিয়ম বেঁধে দিলো সেই পুজো তবে বাঙালির সেরা পুজো যথেষ্ট রকমভাবে সবাই অনেক বেশি নিজেদেরকে আনন্দ দিতে চাই এবং বাঙালির শ্রেষ্ঠ দুর্গোৎসব এই দুর্গোৎসবে কেউ বাড়িতে আটকে থাকতে চায় না তাই রাজ্য সরকারের নিয়মে যথেষ্ট খুশি সারা রাজ্যবাসী।

রাজ্য সরকারি নিয়ম অনুযায়ী বিভিন্ন রকম নিয়ম বেঁধে দেওয়া হয়েছিল পুজোতে। বিধি-নিষেধ যেমন মানতে হবে তার সাথে প্রত্যেক পুজো কমিটি জানিয়েছিল যে সংক্রমণ রক্ষার জন্য তারা আলাদা আলাদাভাবে সচেতনতা নেবে এবং প্রত্যেক পুজো কমিটির সংক্রমণ রোধে যত রকম ব্যবস্থা করা দরকার সেই রকমই ব্যবস্থা নেবে। তবে কোন ভাবে বন্ধ করবে না যেখানে থিম পুজো খরচ হতো সেইটাই লাগাবে করোনা সংক্রমণ কে বেঁধে রাখতে। সংক্রমণকে একেবারে বিদায় জানানোর জন্য কিন্তু কোনোভাবেই পুজো বন্ধ করা সম্ভব নয়।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই রাজ্যের উদ্দেশ্যে জানিয়েছে দুর্গোৎসবে সমস্ত নিয়মকানুন মানা সম্ভব। তবে এ বছর পুজো কার্নিভাল হচ্ছেনা বাবুঘাটে। একসাথে বিসর্জন হয়তো হবেনা। এই বছর পুজো কার্নিভাল পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। এবছর দুর্গোৎসবে কোনভাবেই বিজয়া কর্নিভাল করছে না আর সেই সূত্রে বিভিন্ন পূজা কমিটি ও তারা তাদের মত পোষণ করে।ছে সেখানে তারা বলেছে প্রত্যেকটা জায়গায় এবং এলাকাভিত্তিক বিসর্জন করা হবে এবং তা ছাড়াও শুধুমাত্র বিসর্জন নয় বিসর্জন ছাড়াও বিভিন্ন রকম ভাবে বিভিন্ন নিয়ম মানা হবে অঞ্জলি দেওয়া আরো যে সমস্ত নিয়মকানুন রয়েছে সব কিছু ভাগ ভাগ করে একটা সময়সূচী দেওয়া হবে। সেই সময় সূচিতে শেষ হলে অন্য কোন পুজো কমিটি শুরু করতে পারবে তাদের নিয়ম-কানুন। তাই সমস্ত নিয়ম মেনে কাজ হবে এরকমই জানিয়েছে সবাই।

প্রত্যেক পুজো কমিটি জানিয়েছে যে যে এলাকায় অনেকগুলো প্যান্ডেল রয়েছে সেই এলাকায় একটা সময় করে দেওয়া হবে সেই সময় অনুযায়ী একটা করে ঠাকুর বিসর্জনের সময় দেওয়া হবে। একটা করে প্রশেসন বেরোলে পরে আরও একটা প্রশেসন বেরোবে সেই কাজ সমাপ্ত হলে আর একটা শুরু হবে। সে রকম ভাবেই নিয়ম মানা হবে যদি এবছর বাবুঘাট এর সমস্ত পুজো কার্নিভাল এর কাজ বন্ধ রয়েছে। বিজয়া অনুষ্ঠানেও মানা হবে বেশ কিছু নিয়ম এবং সেই নিয়মনীতি মেনে তৈরি হবে সব ব্যবস্থা। তবেই করণা সংক্রমণ রোধ সম্ভব তা না হলে করোনা সংক্রমণ আটকানো কোনোভাবেই সম্ভব নয়। তাই পুজো যদি নিয়ম মেনে হয় তাহলে বিজয়াকে নিয়ম মেনে করতে হবে। একই দিনে একই টাইমে হয়তো বিজয় করা সম্ভব নয়। একই দিনে হলেও সেটি বিভিন্ন সময় সাপেক্ষে করা হবে সেই বিসর্জন অনুষ্ঠান।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন