নিরাপত্তা বজায় রেখে E-commerce উপর নতুন নিয়ম জাড়ি সরকারের!

0
new rule for e-commerce business
চালু হয় অনলাইন বিজনেসের নয়া নিয়ম

হাজার সংবাদ ডদেশ: এবার নতুন নিয়মে পরিষেবা দেবে ই-কমার্স বিজনেস থেকে শুরু করে অনলাইন পরিষেবাগুলি। তার মধ্যে অ্যামাজন এবং গুগলের মত সাইটও রয়েছে। বাণিজ্যিক মন্ত্রক অনেকদিন আগে থেকে জানিয়েছেন এই সমস্ত কোম্পানিকে যে সব রকমের নথিপত্র দেওয়ার জন্য। কিন্তু তারা কোনভাবেই কর্ণপাত করেনি।

তাই একটি নতুন খসড়া নিয়ে দাবি করছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রক। তিনি জানিয়েছেন যে সমস্ত নিয়ম তাড়াতাড়ি কার্যকরী হবে। এই ১৫ পাআত্র খসড়ায় কি লেখা রয়েছে এবং কি নিয়ম আসছে তার কিছু তা জানিয়েছেন তিনি।

এতদিন যাবৎ সমস্ত ই-কমার্স সাইট গুলোর কোন নথি আমরা হাতে পেতাম না। বেশ কিছুদিন আগে চিনা সংস্থার সমস্ত অ্যাপ বন্ধ করা হয়েছে। চীনের যে সমস্ত বন্ধ করা হয়েছে যে দুর্নীতি নিয়ে আমাদের এখানকার সংস্থা অর্থাৎ অ্যামাজনে ধরনের যে সমস্ত সংস্থা সেখান থেকে যাতে কোনো দুর্নীতির সিকার না হয় গ্রাহকরা তার জন্য এই ব্যবস্থা। এছারাও অনেকবার তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল যে কম্পিউটার কোডিং থেকে শুরু করে সমস্ত ডিটেলস বাণিজ্যিক মন্ত্রকে দেওয়ার জন্য। কিন্তু কোনো কর্ণপাত না করায় এই নিয়ম।

এবার থেকে সুযোগ পাবে দেশীয় সংস্থা গুলো। এবার পিছিয়ে থাকা সংস্থা গুলি প্রতিযোগিতায় নামতে পারবে, সুযোগ পাবে তারাও। নতুন নতুন ছোটখাটো অনেক ই-কমার্স সাইট রয়েছে যারা বাজারে এখনো জায়গা করতে পারেনি কিন্তু এবার তাদের সুযোগ মিলবে বলে জানিয়েছেন। এছাড়াও এইখানে লেখা রয়েছে যে গ্রাহকরা যাতে কোনো ক্ষতি শিকার না হয় সেই সমস্ত তথ্যের নিরাপত্তা রাখার দায়িত্ব নেবে সরকার। যদি ক্ষতির শিকার হয় তা কিভাবে অভিযোগ করবে এবং কিভাবে সেই ক্ষতিপূরণ পাবে তার নির্দেশ দেওয়া রয়েছে এই খোসড়ায়।

এই খসড়া জানানো হয়েছে বহু গ্রাহকদের কোনো নিরাপত্তা নষ্ট না হয় তার জন্য তৈরি হয়েছে। এবার থেকে সমস্ত সংস্থার সবকিছু ডিটেলস রাখা হবে বলে জানানো হয়েছে। গ্রাহকদের সুবিধার্থে গ্রাহকদের দিকে তাকিয়ে এই সমস্ত সুবিধা দেবে সরকার। যাতে কোনো সমস্যা না হয় বরং সেই সুবিধা-অসুবিধা তে কিভাবে গ্রাহকরা নিজেদের মূল্য বিচার করে নেবে তার জন্য এই ব্যবস্থা। এবং এই খুসড়য় ভালো করে দেওয়া রয়েছে যে প্রত্যেকটা সংস্থার অর্থাৎ ই-কমার্স যে সমস্ত সংস্থা রয়েছে প্রত্যেকটা ই-কমার্স সাইটের হেল্পলাইন নম্বর গুলো দিতে হবে বাণিজ্যিক মন্ত্রকের কাছে। হেল্পলাইন নম্বর গুলোর মাধ্যমে যাচাই করবে তার সত্যতা এবং গ্রাহকরা যাতে কোনো ব্যর্থতা স্বীকার না হয় তার দিকে নজর রাখবেন। এর ফলে বহু দেশীয় সংস্থা সুযোগ সুবিধা মিলবে এবং সামনে আসার সুযোগ পাবে তারা।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন