বিধি মেনেই দুর্গা পুজা হবে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী!

0
The chief minister gave permission to Durga Pujo
পুজর অনুমতি দিলেন মুখ্য মন্ত্রী

হাজার সংবাদ ডেস্ক: বাঙালির সেরা পূজা দুর্গোৎসব। দুর্গোৎসব অন্যান্য বছরের মতো জাঁকজমকপূর্ণ হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় ছিল বহু মানুষের মনে। করোনা পরিস্থিতিতে দেশের যে অবস্থা তাতে দুর্গাপূজাতে অনেক সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই শিল্পীদের দিক থেকে শুরু করে সমস্ত সমস্যা দেখা গিয়েছিল। কেউই আশাবাদী ছিল না দুর্গোৎসব নিয়ে কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে জানিয়েছে যে প্রত্যেক প্যান্ডেল দুর্গাপুজো হবে তবে সেটা ছোট করে কিন্তু তার জন্য বেশ কিছু বিধিনিষেধ মেনে চলতে হবে।

মূলত যে বিধিনিষেধ গুলোর কথা তিনি জানিয়েছেন তার মধ্যে প্রথম হল প্রত্যেকটি দর্শককে মাক্স পড়তে হবে এবং প্যান্ডেলে ঢোকার আগে হাত সানিটাইজড করতে হবে। তাছাড়া প্রত্যেক প্যান্ডেলের বাইরে স্বাস্থ্যকর্মী যারা থাকবে তাদের হাতে থার্মাল গান থাকবে সেই থার্মাল গানের মাধ্যমে চেক করা হবে। শরীরের তাপমাত্রা কত? যদি কারো তাপমাত্রা বেশি থাকে তাহলে তাদের মন্ডপে ঢুকতে দেওয়া হবে না। প্রত্যেক প্যান্ডেলে 15 জন করে ঢুকবে তারা বেরিয়ে এলে তারপরে অন্য দর্শনার্থী ভেতরে ঢোকার সুযোগ পাবে। এইরকম ভাবে বেশ কিছু বিধিনিষেধ চাপিয়ে দিয়েছে দুর্গাপূজাতে। তবে যদি এই বিধিনিষেধ মানা সম্ভব হয় তাহলে হয়তো দুর্গাপুজো অনেক সুস্থ স্বাভাবিক ভাবে হবে তা না হলে সমস্যা দেখা দেবে অনেক বেশি।

এ ছাড়াও আরও বেশ কিছু বিধিনিষেধ রয়েছে প্রত্যেক পুজোতে প্যান্ডেলে। বেশ কিছু স্টল থাকে এবং সেই স্টলগুলো কাছাকাছি লাগানো হয় কিন্তু এবারে স্টলগুলো দিলে তার অনেকটা জায়গা ছেড়ে স্টল দেওয়া হবে এবং প্রত্যেকটা স্টলে তিন থেকে পাঁচ ফুট রেখে দিতে বলা হয়েছে। অর্থাৎ ছাড় ছাড় ভাবে স্টল লাগানোর কথা বলা হয়েছে। তাছাড়াও দর্শনার্থীদের জন্য জানানো হয়েছে যে শুধুমাত্র রাত্রেবেলা ঠাকুর দেখতে যাওয়া চলবে না সারাদিন এবং রাত্রে ঠাকুর দেখতে যাওয়া চলবে। শুধুমাত্র রাত্রে যদি মন্ডপে দর্শনের জন্য ভিড় হয় তাতে সমস্যা অনেক বাড়বে। তাই সারা দিন এবং রাত মিলিয়ে যদি সেই কাজ করা হয় তাহলে সমস্যা একটু হলেও কমবে।

থিম পুজোর জন্য অনেক ক্লাব কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে থিম পুজো হয়তো এ বছর হবে না। যদি হয়ে থাকে তা খুব কম।প্লানার থাকে সেই প্ল্যানরা ক্লাবের কর্তৃপক্ষের কথা শুনে এগোবে বলে জানিয়েছে। প্রত্যেক মন্ডবের পুজো করার অনুমতি দিয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় খুব বড় প্যান্ডেল খুব বড় প্রতিমা করা যাবে না। মাঝারি সাইজের প্যান্ডেল এবং প্রতিমা ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রত্যেকদিন প্রতিমা এবং প্যান্ডেল দুটোই সেনিটাইজড করা হবে দুবার করে। এছাড়াও প্রতিযোগিতা মূলকভাবে যে সমস্ত প্যান্ডেল পুরস্কার প্রাপ্ত হবে তাদের বিচার করার জন্য খুব বেশি জন বিচারক প্যানেলে আসতে দেওয়া যাবেনা। 15 জন করে বিচারক প্যান্ডেলে আসতে পারবে। তার আগে তাদেরকে মাক্স এবং স্যানিটারি পরতে হবে। সাথে তাদের থার্মাল চেকিং এরপরে প্যান্ডেলে ঢুকতে দেওয়া হবে।

এই রকম বেশ কিছু নিয়ম নীতি মেনে যদি পুজো করা যায় তাহলে হয়তো অনেক সংক্রমণ এড়ানোর যেতে পারে। তবে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত অনেকটা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলে মনে হয়।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন