করোনা পরিস্থিতিতে লাভ বেড়েছে বাইক-সাইকেল বিক্রেতাদের

0
The business of two wheeler car companies has increased
দু চাকা গাড়ি

হাজার সংবাদ ডেস্ক: দেশের এখন যে পরিস্থিতি তাতে কোনোভাবেই বাইরে বেরোনো সম্ভব নয় সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে। দেশে বা রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি শুরু হওয়া থেকে এখনো পর্যন্ত সমস্ত অফিস কাছারি খোলা রয়েছে যদিও প্রথমের দিকে বেশ কিছুদিনের জন্য বন্ধ ছিল কিন্তু যখন দেখা গেল পরিস্থিতি সামলানোর সম্ভব নয় কয়েকটা দিনে তখনই বাড়িতে বসে কাজের অনুমতি দিয়েছে বেশকিছু অফিস-আদালত। এছাড়াও বেসরকারি কোম্পানিগুলো বাড়িতে বসে কাজের অনুমতি দিলেও সরকারি কর্মীদের কাজে যেতে হচ্ছে অফিসে। তার জন্য সামাজিক সুরক্ষা বজায় রাখতে এড়িয়ে যাচ্ছে সাধারন যানবাহনকে তাই মানুষ কিনেছে সাইকেল দু চাকার বাইক।

কবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে জানেন জানা নেই তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হোক বা না হোক আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী করোনা তা সবাই বুঝে গেছে। তাই নিজেদের সামাজিক সুরক্ষা বজায় রাখতে গেলে প্রত্যেকটা বাড়ির মানুষ কিনেছে সাইকেল কিংবা কেউ বাইক। যারা মধ্যবিত্ত বাড়ির লোকজন তারা সবাই সাইকেল কিনেছে তার কারণ কি তারা সাইকেলে যাতায়াত করলে সামাজিক সুরক্ষা যেমন বজায় থাকবে নিজের কাছে, নিজের সাইকেল থাকলে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করতে হবে না। প্রথমদিকে রাস্তাঘাটে গাড়ি মিল ছিল না সেই সময় সমস্যায় পড়তে হয়েছিল সাধারণ মানুষের। তাই সাইকেল থাকলে নিজের মতো যাতায়াতও যেমন করা যাবে তার সাথে সামাজিক সুরক্ষা বজায় রাখা যাবে তাই বাইসাইকেলের বিক্রি বেড়েছে এই কয়েকটা মাসে।

মানুষ এতটাই সুবিধা পাচ্ছিল সাইকেল কিংবা যে কোন গাড়ি ব্যবহার করছিল না। তার কারণ সমস্ত রাস্তায় বেরোলে গাড়িগুলো সুবিধা এতটাই পেয়েছিল সেই সমস্ত সামগ্রী বাড়িতে থাকলেও ব্যবহার বন্ধ হয়ে গেছিল। তাই এখন সাইকেল বাইক এবং ছোটখাটো গাড়ির পার্টস কিনছে সাধারণ। মানুষ তাই বিক্রি বেড়েছে বাইক সাইকেল পার্টস এর দোকান বাইক সাইকেল সারানো দোকান গুলোতে।

বেশ কিছুদিন আগে হিরো সাইকেল কোম্পানি জানিয়েছিল যে তারা এক বছরের চুক্তি বয়কট করলেও তাদের কোন ক্ষতি হচ্ছে না। তার কারণ তারা এই লকডাউনে নিজেদের ব্যবসা আরও বাড়াতে পেরেছে। কারণেই সময় সমস্ত যানবাহন রাস্তায় বেরোলে মানুষের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে তাই সাইকেল কেনার হিড়িক ও বেড়েছে মানুষের মধ্যে। সেই জন্য তাদের কোথাও কমজোরি নেই অন্যান্য বিজনেসের জন্য সময় খারাপ গেলেও সাইকেল কিংবা বাইক বিক্রেতাদের জন্য যথেষ্ট ভাল সুযোগ যাচ্ছে। এই লকডাউন তার কারণ যানবাহন বন্ধ থাকায় যারা একটু উচ্চপদস্থ মানুষ রয়েছে তারা কিনছে বাইক আর যারা সাধারণ তারা কিনছে সাইকেল। তাই সাইকেল বাইক এর জুড়ি নেই। এই সময় তার সাথেও চলছে সাইকেল এবং বাইকের পার্টস কিনে সেটি সারানোর জন্য ভালো চলছে এই সময় মেকানিকদের বিক্রেতাদের। এইরকম পরিস্থিতিতে চারচাকা কিংবা প্রাইভেট কার ব্যবহার করা ভীষণ সমস্যার কারণ ভীষণ ব্যয়বহুল তাই তারা সবাই সাইকেল কিংবা বাইকের উপর জোর দিয়েছে। এই ছোট যানবাহন যেকোনো জায়গায় গ্যারেজে করা যায় আর সামাজিক সুরক্ষা বজায় রাখা যায় সাথে যখন খুশি তখন বেরোনো যায় নিজের মতো গাড়ির অপেক্ষা করতে হয় না।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন