সুশান্তের লেখা ন-পাতার চিঠি এলো ইডির হাতে! কি লেখা আছে তাতে

0
Sushant's 9 pages letter was submitted by her family to ED
সুশান্ত সিং রাজপুত

হাজার সংবাদ ডেস্ক: এক অভিনেতার মৃত্যুতে বিহার তথা মুম্বাই একেবারে তলিয়ে গেছে আইনজীবীরা। কিভাবে বিচার হয় তা প্রকাশ্যে আসছে এবার প্রত্যেকের মধ্যেই রয়েছে অপরাধীদের জয়ী হওয়ার ঘটনা। আর এবার তা প্রমাণ মিলল সুশান্ত সিং এর মৃত্যুর পর মুম্বাই পুলিশ তাঁকে কোন ভাবে সাহায্য মেলেনি তা স্পষ্ট বোঝা গেল। কেন তিনি বিচার পাননি তার জন্য একেবারে ঊর্ধ্বে উঠে আসছে রিয়া চক্রবর্তী, প্রত্যেকদিন এইভাবে হাতে থেকেছে মুম্বাই রিয়া চক্রবর্তীর কাছে তবে সমস্ত কিছুর মিলছে না বলে সবশেষে সিবিআই হাতে গিয়েছে এই তদন্তের ভার। সিংয়ের মৃত্যুরহস্য তদন্তে সিবিআই এর হাতে যাবার পর চক্রবর্তীকে প্রতিদিন অনেকক্ষণ করেই জেরা করা হচ্ছে ইডি অফিস থেকে তরফ থেকে।

সুসান্ত সিং এর মৃত্য রহস্যের মধ্যে জড়িয়ে রয়েছে রিয়া চক্রবর্তীর নাম তবে এবার সামনে এসেছে সুশান্তের বন্ধু-বান্ধব এবং পরিচিতরা জানিয়েছে যে সুশান্তকে আত্মহত্যা করেনি গলায় চেইন দিয়ে চেপে মারা হয়েছে অর্থাৎ ওকে খুন করা হয়েছে। কারণ এই দাগ রয়েছে সেটা কখনোই একটা কাপড়ের দাগ নয় তার মধ্যে অনেক দোষী। সেই কথা বলেছিল মৃত্যুর পর পর সবাই। অভিনেতা নিজে আত্মহত্যা করেছে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী কিন্তু বন্ধু এবং পরিবার-পরিজনরা জানিয়েছে যে সুসান্ত সিং আত্মহত্যা করতে পারে না এমন প্রাণোচ্ছল ছেলে কোনভাবে আত্মহত্যা করবে এমনটা নয় তবে তাকে খুন করা হয়েছে এছাড়াও একটা নয়া তথ্য এসেছিল বেশ কিছুদিন আগে যখন মুম্বাই পুলিশের হাতে প্রথম এই কেস গিয়েছিল তখন মুম্বাই পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছিল সুসান্ত সিং কে অ্যাম্বুলেন্সে তোলার সময় সুসান্ত সিং এর একটা পায়ের কব্জি থেকে পুরো ভাঙ্গা ছিল যেটা একেবারে ভেঙে ছিল। কিন্তু কেউ যদি আত্মহত্যা করে গলায় ফাঁস দিয়ে তাহলে পায়ে কেন এইরকম চোট আসবে এটা কোন ধরনের লক্ষণ খুন ছাড়া আর কিছু নয়।

এরমধ্যে সুসান্ত সিং এর পরিবার লেখা একটা ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা চিঠি জমা দিয়েছে ইডি অফিসারের কাছে। সুসান্ত সিং এর পরিবারের দাবি সুশান্ত ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবত মনে মনে। প্রতিনিয়ত তার ভবিষ্যতের কথা ভেবে বিভিন্ন স্বপ্ন দেখেছে তিনি খুব প্রভাবশালী নন কিন্তু তিনি তার ভবিষ্যৎ কে সমস্ত দিকে চালনা করতে চেয়ে ছিলেন। সবকিছু উপভোগ করতে চেয়ে ছিলেন তার জীবনে যেমন বিমানচালনা থেকে শুরু করে পাইলট জায়গা নিতে চেয়েছিল ঠিক সেভাবেই আর্মি জয়েন করার ইচ্ছে ছিল তার বিভিন্ন রকম ভাবে তিনি নিজের ভবিষ্যৎ চিন্তা করতেন তা ছাড়াও একটা সাইন্টিস্ট হিসেবেও তার অবদান কম থাকতো না ভবিষ্যতে যদি তিনি সে রকম চিন্তা করতে। এছাড়াও তিনি জানিয়েছেন সেই চিঠিতে তিনি ভবিষ্যতে হলিউডে কাজ করবে তার জন্য নিজে একটা প্রোডাকশন অফিস খুলেছিল আগামী 15 বছরে তিনি কি করতে চান এবং কি হতে পারে তার একটা পরিকল্পনা ওই পেজের মধ্যে করা ছিল। যে মানুষ এত কিছু ভাবতে পারে সে কখনো অবসাদে ভুগতে পারে না। সে কখনোই অবসাদে মারা যায়নি তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করছে সুশান্ত পরিবার তথা বন্ধুবান্ধব পরিজনরা।

রিয়া চক্রবর্তীর বয়ান অনুযায়ী তিনি ইউরোপে হোটেলে দেখা ছবি দেখে অবসাদে চলে গিয়েছিলেন তা নয় তার কারণ যে মানুষ একটা ছবি দেখে অবসাদে চলে যেতে পারে তার জীবনে এত স্বপ্ন থাকতে পারে না। এত স্বপ্ন দেখে কেউ কখনো একটা সামান্য ছবিতে অবসাদে যেতে পারেন না। একের পর এক মিথ্যা আশ্রয় নিচ্ছে রিয়া চক্রবর্তী। মনে করছে অনুরাগী তথা পরিবার সবাই। সুশান্তের এই চিঠিতে অনেক কিছুই লেখা ছিল তার সাথে যদিও এইরকম একটা ঘটনা ঘটতে পারে তাও লিখেছিলেন তিনি। আন্দাজ করেছিলেন হয়তো তবে তিনি নিজেই লিখেছেন এটা আত্মহত্যা নয় খুন তার সেই চিঠিতে লেখা বেশ কিছু কথার মাধ্যমে বুঝা গেছে। যদিও সেখানে রিয়া চক্রবর্তী কে সরাসরি কোনভাবে নাম বলা নেই কিন্তু যা যা ঘটনা সেখানে লেখা আছে তার অনেকটাই এখানে মিলছে। তাহলে আদবে কি সত্যিই রিয়া চক্রবর্তী সামনে থেকে পেছনের লোক লাগিয়ে এই কাজ করেছে। তার কথা বোঝাতে চেয়েছে সুশান্ত অনেকদিন পর এই তথ্য সামনে আশায় চাঞ্চল্যকর একটা পরিবেশ তৈরি হয়েছে।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন