ভার্চুয়াল সেশনের মাধ্যমে পঠন-পাঠন করবে ছাত্রছাত্রীরা, নির্দেশ কেন্দ্রের

0
Students will read through virtual sessions
পঠন পাঠনে আর কোন অসুবিধা নেই

হাজার সংবাদ ডেস্ক: প্রাক-প্রাথমিক থেকে শুরু করে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত কোনভাবেই পড়াশোনার সঙ্গে সংযোগ নেই প্রায় চার মাস হতে যায়। কবে অবস্থা স্বাভাবিক হবে তা নিয়ে কারো জানা নেই। অনিশ্চয়তায় পড়ে রয়েছে স্কুল খোলার দিন। কিভাবে স্কুল খুলবে এবং করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে তাই কেন্দ্রের নিয়ম অনুযায়ী এবার ভার্চুয়াল মাধ্যমে হবে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীদের পঠন-পাঠন।

এই অবস্থায় স্বাভাবিক রূপ নিতে যথেষ্ট সময় লাগবে। তার জন্য কেন্দ্রের এই নিয়ম ভার্চুয়াল মাধ্যমে প্রাক-প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা নিজেদের পড়াশোনা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে। ভার্চুয়াল মূল্যায়নের মাধ্যমে তারা সমস্ত সুযোগ সুবিধা পাবে শিক্ষকদের সঙ্গে যেমন যোগাযোগ করতে পারবে তেমন সমস্ত প্রশ্ন উত্তর জানতে পারবে। শিক্ষকদের থেকে প্রশ্নের উত্তর দিতে বাধ্য শিক্ষকরা যে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রী নিজেদের কোনো প্রশ্ন বা কোন বিষয় যদি অসুবিধা থাকে সেটা সরাসরি শিক্ষকদের সাথে যোগাযোগ করে সেই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর জেনে নিতে পারে।

সরকারি ব্যবস্থার মাধ্যমে এই নিয়ম করার উদ্যোগ কেন্দ্র থেকে নিয়েছে। তবে কিভাবে এই নিয়ম চলবে তা নিয়েও বেশ কিছু বিধিনিষেধ জানিয়েছে কেন্দ্র সরকার। ভার্চুয়াল মাধ্যমে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীরা নিজেদের খুব স্বাভাবিক ভাবে করতে পারবে। যে সমস্ত এলাকা তে অসুবিধা রয়েছে সেই সমস্যার জন্যও যথেষ্ট ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে। এবার সরকারি এবং জাতীয় স্কুল ব্যবস্থা গুলো আর বসে থাকবে না এরাও বেসরকারি স্কুলের মত নিয়ম নীতি চালু করছে। এখানে লকডাউন এ সমস্ত জাতীয় স্কুলগুলো চুপ থাকলেও টেলিকম মাধ্যম মাঝখানে বন্ধ হয়েছিল কিন্তু বেসরকারি স্কুল মাধ্যম কোনোভাবেই বন্ধ হয়নি পঠন-পাঠন এখন ঠিক সেই আদলে এগোচ্ছে সরকারি জাতীয় স্কুল শিক্ষা ব্যবস্থা।

শুধু তাই নয় যে সমস্ত স্কুল এবং প্রাইমারি স্কুল গুলোর ছাত্রছাত্রীরা রয়েছে বহু গ্রামের দিকে সেই সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীদের যদি নেট না থাকে তার জন্য ব্যবস্থা করা হবে। টেলিকম মাধ্যমে তারা ক্লাস করতে পারবে এবং সেখানে সংযোগ না পায় তার জন্য রেডিও মাধ্যমে ক্লাস করানো হবে। শুধুমাত্র যে মোবাইলের কিংবা নেট পরিষেবা ভালো থাকলে তবেই ক্লাস করতে পারবে এমনটা নয়। এই ক্লাস অনলাইন ছাড়াও করা যাবে টেলিকম ব্যবস্থাতে এবং রেডিও মিডিয়াতেও।

নেট ছাড়া টিভি চ্যানেল এবং রেডিওতে যে শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য এগিয়েছে সরকার তার পরেও শিক্ষার্থীদের পঠন-পাঠনের কোন অসুবিধা হবে না বলে মনে করছে কেন্দ্র। সমস্ত সুবিধা অসুবিধার লাভ করতে কেন্দ্র এই নিয়ম এনেছে যাতে শিক্ষার্থীদের এবার আর বাড়িতে বসে থেকে পঠন-পাঠনের সুযোগ-সুবিধা মুছে না যায় পঠন-পাঠনের সুবিধা রেখেই চিন্তাভাবনা নেওয়া হয়েছে। সমস্ত ব্লকে ছাত্রদের এই ভার্চুয়াল ক্লাসের পাঠ্যবই পাঠানো হবে সেই পাঠ্য বইয়ের বিষয় অনুযায়ী ক্লাস চলবে ভার্চুয়াল রুমে। এই ভার্চুয়াল ক্লাসরুম ছাত্র-ছাত্রীরা নিজেদের মতো করে পড়াশোনা করতে পারবে যেখানে কোনো অসুবিধা তে শিক্ষকদের প্রশ্ন করতে পারে। এর জন্য যদিও বেশ কয়েকটি সেশন রাখা হবে সেই উল্লেখযোগ্য শেসন গুলোতে রেডিও-টিভি ইন্টারনেটে ক্লাস করতে পারবে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রী। কেন্দ্রের এই পর প্রস্তুতি এগিয়েছে অনেকটা পাঠ্য বই ছাপাতে দেয়া হয়েছে এবং সেই বই এলে সঙ্গে সঙ্গে ব্লকে পাঠিয়ে দেওয়া হবে ছাত্রছাত্রীদের হাতে দেওয়ার জন্য।কবে কিভাবে এই সেশন চালু হবে টা খুব তাড়াতাড়ি জানানো হবে সাথে জানানো হবে বেশ কিছু নিয়মকানুন।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন