হাতে কার্ড নিয়ে ব্যর্থ হয়ে বাড়ি ফিরতে হবে না গ্রাহকদের! প্রত্যেক প্রকল্পের সঠিক পরিসেবা দেবে রাজ্য সরকার দ্বারা গঠিত কমিটি

0
sastho sathi and including jana kollyan prokolpo provide best service for all region
স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প

হাজার সংবাদ ডেস্ক: শুধু মাত্র সব পরিষেবা দিলেই যে তার সুবিধা পাচ্ছে মানুষ এমন তা নই। পরিষেবা পেতে গেলে অনেক আগে দরকার সে পরিষেবা দেওয়া ক্ষমতা। মুখ্য মন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় জন্য কল্যাণএর জন্য দিয়েছে অনেক পরিষেবা কিন্তু সেই পরিষেবা নিয়ে মানুষ কত কাজে লাগাতে পারছে তা দেখা। এত দিন সব পরিষেবা রয়েছে নেই শুধু সেই পরিষেবা ম্যানেজ করার মানুষ। রাজ্য কল্যাণে যে পরিসেবা দিয়েছে রাজ্য সরকার তার সব পরিষেবা কোন না কোন মানুষ একটা হলেও পেয়েছে।

এবার সবুজ সাথী থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পতে জ্বর নজর রাজ্য সরকারের। এই সব পরিষেবা থেকে মানুষ বঞ্চিত না হয় এবং এই পরিষেবা দ্বারা যাতে মানুষ সঠিক ভাবে সার্ভিস পাই তার জন্য পদক্ষেপ নিতে চাই রাজ্য সরকার। তার জন্য আলাদা একটা কমিটি গঠন করছে মুখ্য মন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জার মাধ্যমে প্রত্ত্যেক মানুষ এই পরিসেব গ্রহন করতে পারছে কিনা তার দেখভাল করার জন্য।

এমন অনেক পরিস্থিতি রয়েছে যেখানে হাতে রয়েছে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড কিন্তু তার বিপদের পরিস্থিতি পরিষেবা পাচ্ছে না। তাই এই সব কিছু দেখভাল করার জন্য যে কমিটি তৈরি করছে সেই কমিতির কাজ যাতে শান্তি তে সম্পন্ন হই তার ব্যবস্থা কড়া হচ্ছে। মানুষের হাতে আছে স্বাস্থ্য সাথী কার কিন্তু পরিসেবা মেলেনি হাসপাতাল থেকে তাই মানুষের পাশে দাঁড়াতে এগুলো দেখভাল কয়ারা জন্য এক কমিটি থাকবে মানুষের পাশে। এছাড়াও মানুষের ঘরে ঘরে এখন দুয়ারে সরকার তাতে কি কার্ড করে সুবুধা পাচ্ছে তাহলে সেই কার্ড থেকে কি লাভ মনে করছে সাধারন মানুষ। তার প্রত্যেক প্রকল্প যাতে মানুষ উপভোগ করতে পারে তার জন্য মানুষ এই কথা ভেবে এগিয়ে যাচ্ছে কমিটি পক্ষ যারা সব সময় নিজর রাখবে কেন পাচ্ছে না মানুষ পরিষেবা এবং যদি তার কিছু করনিয় থাকে তার জন্য সহায়তা করবে এই কমিটি।

সাধারন মানুষের চোখে ভত এসেছে বলে সরকার এটা করছে অনেকের এমন ধারনা রয়েছে কিন্তু আদৌ কি তাই ের আগে আমাদের জন্য সরকার যে প্রকল্প চালু করছে তা এর আগে কোন সরকার তা করেনি। তাই কোন পরিস্থিতি কিভাবে পাশে দারাতেহয় রাজ্য সরকার জানে তাই একে তো করোনা পরিস্থিতি তার সাথে কিছু না কিছু রোগ লেগে আছে মানুষের তাই হসপিটাল ভর্তি হতে গিয়ে যদি পরিষেবা না পায় তাহলে এত প্রকল্পের কার্ড বাড়ি তে থেকে কি লাভ। এবার সরকার বুঝিয়ে দেবে এই প্রক্লপ থেকে মানুষ কে আর অসহায়তায় বাঁচতে হবে না। প্রত্যেক তা সরকারি সহায়তা যাতে মানুষ পাই তার ব্যবস্থা করবে সরকার। আজ থেকে এই কমিটি গঠনের কাছে উদ্যোগ নিচ্ছে রাজ্য সরকার। আর হাতে কার্ড নিয়ে টাকা দিয়ে চিকিৎসা করাতে হবে না কার্ড থাকলে তার স্বাচ্ছন্দ্যে পরিষেবা পাবে মানুষ আর রুগি নিয়ে বাড়ি ফিরতে হবে না বা কোন সরকারি সানহাজ্জের জন্য ব্যব্রথ হয়ে ফিরতে হবেনা মানুষের।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন