অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে জুলুমবাজি করছে অ্যাম্বুলেন্স চালকরা! তাতে হয়রানি হচ্ছে সাধারন মানুষ

0
Realizing the opportunity, the ambulance is taking extra fare

হাজার সংবাদ ডেস্ক: করোনা তে হয়রানি মানুসের আর ভাড়া নিয়ে জুলুমবাজি অ্যাম্বুলেন্সের। এর আগে বিভিন্ন রকম ভাবে মানুষ হয়রানি হয়েছে আর তার সাথে করোনা ভাইরাস প্রকপে পড়ায় মানুষের বিভিন্ন রকম ভাবে ভাড়ার উপর নির্যাতিত হতে হয়েছে। কারণ যেখানে অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া ৫০০ তাকার বেশি নয় কিংবা খুব বেশি হলে হাজার হওয়ার কথা সেখানে কয়েক কিলোমিটার রাস্তায় অ্যাম্বুলেন্স গুলির অতিরিক্ত নয় বরং অতি অতিরিক্ত ভাড়া নিয়েছে অসুস্থের পরিবারের কাছ থেকে। কোথাও কয়েক কিলোমিটার রাস্তায় ১৪ থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া নিয়েছে এম্বুলেন্স।

কিন্তু মানুসের সুবিধা ও পাশে দাঁড়াতে কেন্দ্র সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী সুপ্রিম কোর্ট এই রায় দেওয়া হয়েছে যে এবারে অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া ধার্য করা হবে একটা নির্দিষ্ট মানে। তা ঠিক করবে রাজ্য। অতিরিক্ত ভাড়া কোনভাবেই নিতে না পারে তার জন্য কেন্দ্র সরকার অবশ্যই নিয়ম দেবে এবং তার জন্য ভাবনা-চিন্তাও চলছে। রাজ্য গুলির উপর সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দিয়েছে যে মানুষের অবস্থা অনেকটাই দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে করোনা প্রকপে। তাই কোনভাবেই অতিরিক্ত ভাড়া দেবে না সাধারন মানুষ। অ্যাম্বুলেন্স এখানে কালোবাজারি বিজনেস করছে তার জন্য পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। তাই প্রত্যেক রাজ্য সরকারের উদ্দেশে সুপ্রিমকোর্ট জানিয়েছে যে রাজ্যের থেকে একটা নিয়ম বেঁধে দেওয়া হোক। ভাড়াও বেঁধে দেওয়া হোক। সেই ভাড়ার উপরে কোনরকম ভাবে ভাড়া বেশি ভাড়া দেবে না অসুস্থ পরিবার।

তাই প্রথম থেকে করোণা প্রকল্পে যেভাবে এম্বুলেন্স এর ভাড়া নিয়ে ঝামেলা হয়েছে বিভিন্ন রকম ভাবে মদ বিপক্ষে গেছে তা নিয়ে বিভিন্ন রাজ্যগুলোতে প্রচুর বিক্ষপ দেখা গেছে। প্রত্যেক হাসপাতালের সামনে সারি সারি অ্যাম্বুলেন্স ব্যবসায়ীরা আছে কিন্তু এততাই ভাড়া নিচ্ছে তাতে অগত্যা পরে মানুষ সেই পরিসেবা নিতে বাধ্য হচ্ছে। ব্যবসা করছে তারা এই দুর্দিনে, এরকম করা উচিত নয়। এবার থেকে রাজ্য সরকার আইন করবে এবং সেই আইনে চলতে হবে অ্যাম্বুলেন্স গুলিকে। নির্দিষ্ট ভাড়া ধার্য করতে হবে এবং যথাযথ অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা পাওয়ার জন্য কিভাবে ব্যবস্থা রাখলে তা সহজ ভাবে চলবে তার চিন্তা-ভাবনা নিতে হবে রাজ্য সরকারকে। প্রত্যেকটা নিয়ম-কানুন সঠিকভাবে যাচাই করে দেখতে হবে কেন্দ্রের নির্দেশে প্রত্যেক রাজ্যের মানা উচিত।

কারণ প্রত্যেক রাজ্যের যদি কোন রকম ভাবে অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা থাকে সেখানেও সেই পরিষেবা বাড়ানোর জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্র। কারণ এরকম পরিস্থিতিতে মানুষের যেমন বারি থেকে করোনা সুরক্ষা নিতে বলা হচ্ছে তেমন করোনা ছাড়া সাধারন রুগীরা এই সমস্যাতে পড়ছে। কিংবা হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে না বিভিন্ন কারণে রোগীকে সরকার বারবার জানিয়েছে বাড়িতে ট্রিটমেন্ট করানো হোক কিন্তু করণা রোগী ছাড়াও প্রত্যেকদিন অন্যরকম রোগের রোগীদের চিকিৎসার জন্য অ্যাম্বুলেন্স অবশ্যই দরকার কিন্তু এখানে সুযোগ নিচ্ছে অ্যাম্বুলেন্স ব্যবসায়ীরা। প্রত্যেকটা ক্ষেত্রেই ভাড়া অতিরিক্ত নিচ্ছে যেখানে এক কিলোমিটারের ভাড়া ৬০০ টাকা এবং অক্সিজেন দিয়ে আর ৪০০ টাকা। আইসিইউ হলে ৫০০০ থেকে ৫৫০০ বা ৬০০০ টাকা পর্যন্ত টাকা নিচ্ছে তারা। এর আগে বহু রকম ভাবে বিভিন্ন নিউজ চ্যানেলে এবং সম্প্রতি কিছু সংবাদ মাধ্যমে জানানো হয়েছিল যে এম্বুলেন্স ভাড়া নিয়ে বিক্ষোভ বার্তা নিয়ে কথা উঠেছে। অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া নিয়ে এর আগে বিক্ষোভ দেখা গিয়েছিল সল্টলেক এলাকার রাস্তায়। তারপরে বিধাননগরের এম্বুলেন্স অতিরিক্ত ভাড়ার জন্য ঝামেলা হয়েছিল। তবে এবার আর তা নয় সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী ভাড়া বেঁধে দেওয়া হবে। অ্যাম্বুলেন্স নির্দিষ্ট কোনো সুযোগ-সুবিধা বুঝে বেশি ভাড়া নিতে পারবে না। তাহলে তা আইনি অপরাধ তার জন্য অন্য কোন আইন রাখা হবে বলে জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন