পদ্মার রুপোলী শস্য পশ্চিম বাংলায়! পুজর আগে খুসির আমেজ, বাঙ্গালির পাতে ইলিশ

0
Podda's hilsa came to West Bengal
পদ্মার ইলিশ

হাজার সংবাদ ডেস্ক: পুজোর আগে খুশির আমেজ বাঙালির পাতে এবার পদ্মার ইলিশ। বহুদিন পর রাজ্যে ঢুকেছে রুপালি শস্য। মঙ্গলবার থেকে পাইকারি বাজারে পাওয়া যাবে এই পদ্মার ইলিশ। গত বছর থেকে একই কথা বলে আসার পর বাংলাদেশ সরকার এবছর ১৫০ টন ইলিশ পাঠানোর অনুমতি দিয়েছে। যদিও গত বছর জানানো হয়েছিল ৫০০ টন ইলিশ পাঠানো হবে কিন্তু তা ভাবনার অতীত তা হয়নি। কিন্তু এবছর শেখ হাসিনা সরকারের সম্মতি দিয়েছে পশ্চিমবাংলায় ইলিশ আমদানির। পেট্রোপোল পেরিয়ে মঙ্গলবার দিন কলকাতার বিভিন্ন বাজারে ঢুকেছে রূপালী ইলিশ। তাই ইলিশের দেখায় এবছর না মেলায় সবাই ভীষণ ক্ষুধার্ত। কতদিন দেখেনি মানুষ এ জিনিস। এবছর করোণা পরিস্থিতিতে এমন অবস্থা ছিল যাতে কোনোভাবেই যদি একটু আধটু বাঙালি রান্না ঘরে আসত তাও আর এ বছর জোটেনি।

তবে দুর্গা পুজোর আগে এত ভাল একটি খবর আসবে কেউ ভাবতেই পারেনি। পদ্মার ইলিশ মঙ্গলবার দিন বাজারে পাওয়া গেছে। এই মঙ্গলবার দিন বাঙালির হাসি চওড়া হয়েছে। এবং মৎস্য শিল্পের সাথে জড়িত দোকানিদের চিন্তার একটু হলেও কমেছে। যদিও ইলিশ খেতে পারবে কতজন আক কে জানে। মধ্যবিত্ত পরিবারে এখন যা অবস্থা তাতে এই লকডাউনে কোনভাবেই বেশি দামের ইলিশ কিনে খাওয়া সম্ভব নয়। কিন্তু এবছর যে একেবারেই চোরা আকাশ ছোঁয়া দাম রয়েছে।

এই দেশের ৫০০ থেকে এক কেজির ইলিশ এর পাইকারি দাম রয়েছে ৭০০ থেকে ১২০০ টাকা। তাই এই ইলিশ খুচরা বিক্রি হবে কত টাকায় তা জানার বিষয়। তাতে সাধারণ মানুষ খেতে পারবে কি পারবে না তা খুব চিন্তার কারণ ব্যবসায়ীরাও যেমন বসে রয়েছিল ঠিক একইভাবে বহু বাড়ির কর্মজীবী মানুষ অবসর প্রাপ্ত হয়েছিল ঘরে টাকা নেই কিন্তু রুপালি শস্যের জন্য এতগুলো টাকা তাদের পক্ষে সম্ভব নয়। তাই বাজারে ব্যবসায়ীদের দামের ওপর নির্ভর করবে এই ইলিশের। তবে পুজোর আগেই কোথাও একটা বড় উপহার হয়তো এটা কারণ এ বছর এমনসময় গেছে তাতে কোনভাবেই পাতে পড়েনি ইলিশ।

তবে বাঙালি ভোজন রসিক বাঙালি পাতে পড়বে ইলিশ। পদ্মার ইলিশ সুগন্ধ তবে বাঙালির মুখে হাসি ফুটেছে। সেটাই অনেক বাজার দর কিন্তু একটু হলেও কেউ সঞ্চয় রেখেছে তার থেকেও ইলিশা বাজারে ভিড় জমেছে। বহু মানুষের এবং ব্যবসায়ীরা নিজেদের দাম থেকে বেরতে চাই না। তার মধ্যে আবার রয়েছে মনসা পূজা যেখানে ইলিশ মাছের ভীষণ দরকার। তার জন্যই আরো অনেক বেশি লাভের হার দেখছে ব্যবসায়ীরা। নিজেদের দাম থেকে একটু কমছে না অসুবিধা হলেও নিয়ম রক্ষার খাতিরে কিন্তেই হচ্ছে মাছ।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন