রাজ্যের থেকে চিঠি কেন্দ্রের কাছে! নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুক১২৫ তম জন্ম দিবস উপলক্ষে ২৩ শে জানুয়ারি জাতীয় ছুটি ঘোষণা করা হোক

0
Mamata demanded that Netaji's birthday be declared a national holiday
নেতাজি জন্ম দিনে জাতীয় ছুটির আবেদন

হাজার সংবাদ ডেস্ক: রাজনৈতিক মহলে আবারো এক গোলযোগ সৃষ্টি হতে চলেছে। রাজনৈতিক মহলে এখনো পর্যন্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সাথে কেন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে চলেছে একের পর এক বিভিন্ন ব্যাপার নিয়ে। মনোমালিন্যে দেখা গিয়েছে বহুবার। তবে এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আরো এক দাবি করেছে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তিনি জানিয়েছেন যে 23 শে জানুয়ারি অর্থাৎ 2021 সালের 23 শে জানুয়ারি নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিন জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করা হয়। বহুদিন আগে থেকেই এই ছুটির আর্জি জানানো হচ্ছে কিন্তু সেটি এখনো পর্যন্ত জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষিত হয়নি বরং এটি পালনীয় দিবস হিসেবে আজ সবাই মেনে এসেছে কিন্তু এই বীর পুত্রের জন্য এই কাজটি করা উচিত আমাদের। এই প্রসঙ্গে মমতা বন্দোপাধ্যায় জানিয়েছে যে আমি মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার আগে থেকেই আবেদন করে চলেছি কিন্তু সেই কাজের কোন রকম ভাবে সফল হয়নি।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্র সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছে যে 125 তম জন্মবার্ষিকীতে ২৩ শে জানুয়ারি অর্থাৎ সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিন জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করা হয়। আর এখন বছরে তিনটি জাতীয় ছুটি রয়েছে মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিন এবং 15 ই আগস্ট ও 26 শে জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবস। এই তিনদিন জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করা হয়। যেখানে মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিন পালনের জন্য ছুটি ঘোষণা করা হচ্ছে সেই জায়গায় বীর পুত্র হিসেবে জাতীয় ছুটি হিসেবে সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিন পালন করা হবে না কেন। সেইজন্য জাতীয় ছুটির আবেদন জানিয়েছে তিনি এর আগেও বারবার বলেছেন এই ছুটির জন্য। তিনি বহুবার আবেদন করেছেন কিন্তু তার কোন ফল মেলেনি কিন্তু এবছর অগ্রিম ভাবে তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি পাঠিয়েছে এ বিষয়ে অন্ততপক্ষে সেই নিয়ম চালু করা হয়।

মানুষের মনে এবং মানুষের প্রত্যেকটা যুব সমাজের কাছে একজন আদর্শ মানুষ হিসেবে তার জীবনকাহিনী অনেক বেশি ফুটে উঠবে তাহলে তাতে মানুষ অনেক বেশি জানতে পারবে এবং জানার আগ্রহ দেখাবে পালনীয় দিবস। এর জন্য বহু মানুষ এই দিনটি পালন করে না অনেকেই থাকে বাড়িতে বসে তবে এবার তা করা একেবারেই উচিত নয়। যেহেতু এই আবেদন বহুদিন ধরে বাংলার মানুষ তথা দেশের মানুষ করে চলেছে সেই আবেদন কেন মানতে চাইছে না কেন্দ্র সরকার তা নিয়েও তিনি আক্ষেপ জানিয়েছে।

দেশের আদর্শ নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু বীরপুত্র দেশের হয়ে লড়েছিলেন এবং দেশের আদর্শ কথা বলে দেশকে সঠিক পথে এগিয়ে ছিলেন আর তার আদর্শই। আজকে আমাদের ভারত বর্ষ মাথা উঁচু করে বাঁচতে শিখিয়েছে শুধুমাত্র সুভাষচন্দ্র বসুর নাম করা উচিত নয় সমস্ত সংগ্রামী তারা নিজেদের দেশকে বাঁচাতে নিজেদের মাতৃভূমিকে বাঁচাতে তারা যেভাবে নিজেদেরকে শেষ করেছে সেই জায়গা থেকে নিজেদের সুভাষচন্দ্র বসু নাম একেবারে উঠে আর তার নাম কি দেওয়া যায় না। এটি জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করার জন্য তিনি বহুবার আবেদন করেছেন এটা যেমন জানিয়েছে তার সাথে সাথে তিনি এও জানিয়েছেন পত্রের প্রথমে যে এ বছর অর্থাৎ এ বছরের শেষে মানে 2021 সালের শুরুতেই যখন ২৩ শে জানুয়ারি হবে। তখন যেন সেটির জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করা হয় সারা দেশবাসীর যেন এই ২৩ শে জানুয়ারি ছুটি গ্রহণ করতে পারে এবং তার সাথে সাথে যুব সমাজের কাছে যুব কল্যাণ হয়ে উঠুক এই ছুটি যুব সমাজ দেশ গড়তে যুবসমাজ অনেক বেশি দরকার।

খুব শীঘ্রই এই নিয়ে একটা গোলযোগ বাদে চলেছে কারণ বিজেপি সরকার কলকাতা থেকে যেমন চাই এই ছুটি গ্রহণ করা হোক তৃণমূল সরকারি ছুটি গ্রহণ করা হোক। তবে কেন্দ্র সরকার কী চাই সেটা জানার বিষয়। এই ছুটি গ্রহণ করা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে রাজনৈতিক মত বিরোধ থাকবে আর সেই মত বিরোধে কি ঘটনা ঘটতে চলেছে আদৌ কি সেই ছুটি হবে। তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে তবে বহুদিনের আবেদনের মানা উচিত সঠিক ভাবে চিন্তা করুক। তার জন্য ছুটি হোক কিংবা না হোক প্রত্যেকটা আদর্শে। যেন সঠিক ভাবে ভারত বর্ষ সঠিক পথে চলতে পারে তার জন্য সারা দেশবাসীকে পাশে থাকার আবেদন জানিয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কিন্তু তার সাথে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ওরকম ভাবে একটি আবেদন জানিয়েছে 23 শে জানুয়ারি জাতীয় দিবস হিসেবে পালন করা হয় এই ছুটির দিনে মানুষ আলাদা আলাদা ভাবে নিজেদের জ্ঞান অর্জন করুক এবং দেশদ্রোহীদের নিয়ে অনেক বেশি জ্ঞান অর্জন করে নিজের মাতৃভূমিকে বাঁচাতে সাহায্য করে তার মত শিক্ষা নিতে পারুক আর এই আদর্শ বীর পুত্রের জন্য আমাদের দেশ আজ গর্বিত। আমাদের মাতৃভূমি আজ এই বীর পুত্রের জন্য গর্ব অনুভব করে আর গোটা ভারতবর্ষের অনেক বেশি নত হয়ে থাকার কথা নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর কাছে কারণ তিনি যা করেছেন তা অন্য কোন মানুষ করেননি অনেক সংগ্রামী ছিলেন সেই সময় তবে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর নাম একেবারে ঊর্ধ্বে।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন