পুজোর আগেই চলতে পারে লোকাল ট্রেন! ক্লাউড সিস্টেমের দ্বারা চলবে লোকাল ট্রেন

0
Local trains may start before durga Puja
লোকাল ট্রেন চলবে পুজোর আগেই

হাজার সংবাদ ডেস্ক: ট্রেন চলতে পারে পুজোর আগেই তা নিয়ে বহু কথা উঠছে তার কারণ রাজ্য এবং রেল মন্ত্রকের তা নিয়ে একটা বৈঠক হবে বেশ কিছুদিনের মধ্যে তাদের কথা শুনে মনে হয়েছে যে খুব শীঘ্রই হয়তো রাজ্যে রেল পরিষেবা চালু হবে। লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু হলে কি বিধি মানতে হবে এবং কিভাবে সম্ভব তা নিয়েও রেল মন্ত্রকের সঙ্গে আলাদাভাবে বৈঠক করবেন রাজ্য সরকার। সারাদেশে কোভিড ঊর্ধ্বমুখী সেইখানে কোনোভাবেই রেল পরিষেবা দেওয়া যুক্তিযুক্ত নয়। কিন্তু রেল পরিষেবা চলবে কি চলবে না তা পুরোপুরি নিয়ন্ত্রন করবে সেই অনুযায়ী রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলাদাভাবে বৈঠক করার কথা জানিয়েছেন। সেই বৈঠকে রাজ্য সরকারের মত অনুযায়ী বৈঠক কিছুটা হলেও ইঙ্গিত দিয়েছে। তার মধ্যে অনেকেই বেশ কিছু প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছে।

কিছু মানুষ জানিয়েছে যদি লোকাল ট্রেন চলে কিন্তু সেই ট্রেন চললে সুবিধা অসুবিধা কিসের। তার থেকেও বড় কথা মানুষ কিভাবে ট্রেন চললে বিধিনিষেধ মানবে। মেট্রো পরিষেবা চলে যেমন অনেক বিধিনিষেধ মানা যাচ্ছে তা লোকাল ট্রেনে কোনোভাবেই সম্ভব নয়। তা নিয়ে রেল মন্ত্র মেট্রো পরিষেবা চালু হলে সেই পরিষেবার ওপর তাকিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে বলে চিন্তাভাবনা করেছে। কারণ মেট্রোরেলের সঙ্গে আরও বাড়তে পারে। মেট্রোরেলের পরিষেবাতে আউট এবং ইনের জন্য আলাদা কোন দরজা থাকে কিন্তু লোকাল ট্রেনের ক্ষেত্রে তাদের ক্ষেত্রে অনেক দরজা থাকে এছাড়াও যেগুলো রয়েছে সেখানেও আলাদা আলাদাভাবে কোন সিকিউরিটি ব্যবস্থা থাকে না। তার থেকেও বড় কথা গ্রামাঞ্চলের রেল পরিষেবা গুলো রয়েছে সেখানে বিভিন্ন জায়গা থেকে বেরোনো যায় প্লাটফর্মে আলাদা কোনো নির্দিষ্ট ইন এবং আউট ডোর থাকে না। সে ক্ষেত্রে অনেক বেশি সতর্ক যদি না হয় তাহলে কোন ভাবেই সংক্রমণ আটকানো সম্ভব নয়।

তাই লোকাল ট্রেন চালু করতে গেলে বিভিন্ন বিধিনিষেধ মেনে এবং নতুন পরিকাঠামো তৈরি করে লোকাল ট্রেন চালনা করতে হবে মেট্রো চালু তেও একই ভাবে নতুন পরিকাঠামো করতে হয়েছে কিন্তু সেখানে ঝুঁকি অনেক কম। লোকাল ট্রেনের জন্য ঝুঁকি অনেক বেশি। বেশ কিছু লাইন যেখানে সারা দিনে প্রচুর পরিমাণে লোকজন যাতায়াত করে সেখানে এত প্যাসেঞ্জার নিয়ে কোনো ভাবে ট্রেন চালানো সম্ভব নয়। তাই নতুন কিছু বিধিনিষেধ নিয়ে হয়তো পুজোর আগেই ট্রেন চালু হলেও হতে পারে। তা নিয়ে পুরো মতামত দেবেন রেল মন্ত্রক। এই নিয়ে কেন্দ্র কোনো কথা বলতে পারবে নাও বলতে পারে।

প্রত্যেক রাজ্য শুধুমাত্র রাজ্য তার মত জানাতে পারে ঠিক সেই অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার জানিয়েছে যে রেল চালানোর জন্য যা কিছু কর্মবিধি করার তাই করবে। কিন্তু সেখানে জানাবে রেলমন্ত্রী ।রেল মন্ত্রকের নির্দেশ অনুযায়ী ক্লাউড সিস্টেমের মাধ্যমে হয়তো এবারে চলবে লোকাল ট্রেন পরিষেবা। ক্লাউড সিস্টেমের মাধ্যমে এই পরিষেবা চালালেই সংক্রমণ আটকানো সম্ভব তা না হলে কোনভাবেই সম্ভব নয়। লোকাল ট্রেনের সংক্রমণ আটকানো খুব সমস্যা কারন কল্যাণী সীমান্ত লোকাল এছাড়াও রয়েছে যেখানে প্রচুর পরিমাণে সারাদিনে যাত্রীরা যাতায়াত করে এবং সেখান থেকে লোকাল ট্রেন চললে অনেক সমস্যা বাড়তে পারে। সেখানে কোনোভাবেই সংক্রমণ আটকানো সম্ভব নয়। প্লাটফর্মে ব্যারিকেড করে রাখলেও সেই ব্যারিকেডে তা কতটা মানবে সবাই এবং কিভাবে চলবে তা নিয়ে জানাবেন’ রেলমন্ত্রী। বিধিনিষেধ মেনে চালাতে হবে লোকাল ট্রেন।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন