আজ থেকে টানা তিন দিন ট্রাক ধর্মঘট! ট্রাক চালকদের দাবি মানতে নারাজ রাজ্য সরকার

0
In the state of truck strike for three days in a row
তিন দিন ট্রাক ধর্মঘট

হাজার সংবাদ ডেস্ক: বাজারের সমস্ত জিনিসের দাম হবে অগ্নিমূল্য সেরকমই মনে করছে রাজ্য বাসী। তার কারণ সোমবার থেকে টানা তিন দিন চলবে ট্রাক ধর্মঘট আর ট্রাক ধর্মঘট চললেই আলু পেঁয়াজের দাম এর সাথে সাথে সমস্ত সবজির দাম বাড়বে। অগ্নিমূল্য আলু পিঁয়াজের দাম তাতে মানুষ হয়রান হয়ে উঠছে আর তার সাথে যদি তিন দিন ট্রাক ধর্মঘট হয় তাতে মানুষ একেবারে হয়রান তো হবেই তার সাথে মাথায় বজ্রপাত পড়ার জোগাড়। কারণ আলু পেঁয়াজের দাম এর সাথে সাথে সবজির দাম এখন অগ্নিমূল্য আর তার সাথে ট্রাক ধর্মঘট যথেষ্ট ভালো ভাবে প্রভাব ফেলবে এই দিকে তার জন্য চিন্তিত বাংলার মানুষ।

ট্রাক ধর্মঘট নিয়ে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে বিভিন্ন রকম আর্জি জারি করেছে ট্রাক চালকরা। তারা জানিয়েছে যে কেন্দ্রের নিয়ম মানছে না। তার থেকেও বড় কথা প্রত্যেক রাস্তায় এবং পুলিশ এছাড়াও তোলাবাজির টাকা দিতে গিয়ে তাদের কোনো আয় হচ্ছে না তার জন্য এই ধর্মঘট। ওভারলোডেড মাল আনতে গিয়ে প্রত্যেককে দিতে হচ্ছে এক্সট্রা টাকা আর তার জন্যই তারা জানাচ্ছে যে কোন রকম ভাবে তারা লাভ করতে পারছে না। এছাড়াও রাজ্যের তরফ থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রের কোন নিয়ম না মেনে ট্রাক চালকদের ওপর বিভিন্ন রকম নিয়ম জারি করছে। কখনো বা বলছে অন্য রাজ্য থেকে আসা সমস্ত ট্রাকচালকরা করোণা ছড়াচ্ছে আবার কখনো বা তাদের ওপর বরাদ্দ টাকা ফেলে দিচ্ছে সেই টাকা মেটাতে গিয়ে ট্রাক চালকদের ইনকাম কমছে আর তার জন্য এই ধর্মঘট।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছে যে প্রত্যেকটা ওভারলোডিং ট্রাক মাল আনতে গিয়ে বাংলার বহু রাস্তা নষ্ট হচ্ছে এবং সেই রাস্তা নষ্ট হলে বাংলার মানুষের অসুবিধা হচ্ছে। আর তার জন্যই ওভারলোডিং মালামাল আনা যাবে না আর যদি ওভারলোডিং মালা না হয় তার জন্য বরাদ্দ টাকা তাদেরকে পে করতে হবে। এইরকম নির্দেশ জারি করেছে রাজ্য সরকার। কিন্তু পুলিশ এবং সিভিক ছাড়াও তার তলাবাজিতে তিনগুণ টাকা বেরিয়ে যাচ্ছে ট্রাক চালকদের তাই তাদের কোনো আলাদা ভাবে ইনকাম হচ্ছে না। আর ইনকাম হচ্ছে না বলেই তারা ধর্মঘটের পথে হেঁটেছে। তারা বহুদিন ধরে দাবি করছিল আর সেই দাবি মানতে নারাজ রাজ্য সরকার তার জন্যই তাদের আজকের এই ধর্মঘট। তবে রাজ্যের তরফ থেকে জানানো হয়েছে তাদের ধর্মঘটে দাবি মানতে রাজি নয় রাজ্য সরকার। কোন ভাবেই সেই দাবি মানবে না তাই এই তিনদিন ধর্মঘটের বদলে আরো কতদিন ধর্মঘট হতে পারে তা অজানা রয়ে গেছে। আর তার জন্যই সমস্যায় পড়বে রাজ্যের সমস্ত মানুষ তথা বাংলার মানুষ।

সমস্ত জিনিসের অগ্নিমূল্যও যেমন আলু পিঁয়াজের দাম তার সাথে বাড়ছে ডিমের দাম। এবারে জোড়া ডিমের দাম হতে পারে 15 থেকে 17 টাকা এখন যেমন ডিমের দাম অগ্নিমূল্য আরো বাড়তে পারে ডিমের দাম কারণ আমাদের রাজ্যে ডিম সরবরাহ করে থাকে সাধারণত অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে আর অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে যদি কোন ট্রাক আসতে দেওয়া না হয় আর রাজ্য যদি ট্রাক ধর্মঘট হয় তাহলে ডিমের দাম অগ্নিমূল্য হবে বলে মনে করছে সবাই। আর শুধুমাত্র রাজ্যের মানুষ কেন যেভাবে ধর্মঘট এবং বাজারের দাম অগ্নিমূল্য হতে শুরু করেছে তার জন্য প্রত্যেকটা জিনিসের দাম বাড়বে এটা খুব স্বাভাবিক নিত্য প্রয়োজনীয় সমস্ত জিনিসের দাম বেড়েছে হু হু করে। তাতে মানুষের হয়রানি বাড়ছেই কিন্তু রাজনৈতিক দল মাথা নত করছে না কোথায় বরং তারা আরও বাংলার মানুষকে বিপর্যয়ের মধ্যে ফেলছে আর এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে সমস্ত ট্রাক চালকরা ও নিজেদের দাবি যাতে মানা হয় তার জন্য চাপ দিচ্ছে রাজ্যের উপর। তবে এই দাবি মানবে না রাজ্য’ তা নিয়ে একটা প্রশ্নসূচক বিষয় রয়েছে আর এর থেকেও বড় কথা যে যদিও মানা হয় কিন্তু এই তিন দিনের ধর্মঘটে যে পরিমাণ সমস্ত জিনিসের মূল্য বৃদ্ধি হবে তার জন্য সামাল দিতে গিয়ে অনেক বেশি সমস্যায় পড়তে হবে সাধারণ মানুষকে।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন