আপনার চুল কি পেকে যাচ্ছে? তাহলে বাড়িতে বসেই তার চিকিৎসা করান

0
how to stop hair premature grey
চুল পাকা বন্ধ করবেন কিভাবে?

হাজার সংবাদ ডেস্ক: ঘরোয়া উপায় সমস্যা সমাধান করা যায় অল্প বয়সে চুল সাদা হয়ে যাওয়ার মত সমস্যা থেকে।

অল্প বয়সে চুল পেকে যাওয়া এখনকার দিনে খুব স্বাভাবিক হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অল্প বয়সে চুল পাকা লোকের চোখে আবার ঠাট্টার বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। এই কারণে অনেকে নানা ধরনের হেয়ার কালার ব্যবহার করে থাকে কিন্তু তাতে দেখা যায় বেশিদিন এই কালার স্থায়ী হয় না শুধু তাই নয় তাতে আরও বেশি ধরনের সমস্যা দেখা দেয় চুল সাদা হওয়া বাড়িয়ে দেয়। তার সঙ্গে সঙ্গে চুল ঝরে পড়তে শুরু করে। কারণ প্রত্যেক কালারের মধ্যে থাকা ক্যামিকেল চুল কে নস্ট করে থাকে। তাই এই সব ধরনের কিছু ব্যবহার না করে ঘরোয়া উপায়েই নিজের চুল কে সাদা হয়ে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে পারেন। দেখে নিন কিভাবে,

লেবুর রসের সঙ্গে একটু বাদামের তেল মিশিয়ে নিয়ে মাথায় মাখলে চুল সাদা হওয়া আস্তে আস্তে কমে যাবে।
আমলকিও ভালো কাজে দেয় চুল পড়া হাত থেকে রক্ষা করে ও সহজে চুলকে পাক ধরতে দেয় না। আমলকি রস নিয়ে তার সঙ্গে একটু নারকেল তেল মিশিয়ে থাকলে কাজে দেয়। এছাড়া আমলকি তেল বানিয়ে রাখতে পারেন। তার জন্য কিছুটা আমলকির থেঁতো করে রস বের করে নিয়ে খানিকটা নারকেল তেলের সঙ্গে ফুঁটিয়ে রেখে দিন সেই তেলটা নিয়মিত ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যাবে।

কালো চা এটিও ভালো কাজে আসে। অল্প বয়সে চুল পেকে যাওয়া থেকে রক্ষা করতে চা পাতা নিয়ে সিদ্ধ করে সেটা ঠান্ডা হওয়ার পর চুলের মধ্যে ব্যবহার করতে হবে একঘন্টা রেখে চুল ধুয়ে ফেলুন তাতেও ভালো কাজ দেয়।

মেথির তেল ব্যবহার করলে ভালো কাজ দেয় চুল পাকার হাত থেকে কিছুটা নারকেল তেলের সঙ্গে একটু মেথি দিয়ে তেল টাকে গরম করে নিন তারপর ঠাণ্ডা হয়ে গেলে অবশ্যই এই তেলটা রাতে শোয়ার আগে চুলে মেখে নিন আস্তে আস্তে চুলপাকা কমে যাবে।

আরো সহজ হয় নারকেল তেল সরষের তেল গরম করে প্রতিদিন চুলে ব্যবহার করা যায় চুল পাকা কম করে।
মধু ও টকদই একসঙ্গে একটি মিশ্রন বানিয়ে সেই মিশন টাকে চুলে মেখে 15 মিনিট রেখে চুলটাকে শ্যাম্পু করে ধুয়ে নিন এটাতেও ভালো কাজ দেয়।

তার সঙ্গে সঙ্গে মনে রাখবেন পরিমাণমতো জল পান করার কথা আর যতটা পারবেন এড়িয়ে চলবেন ফাস্টফুড খাবারকে এড়িয়ে চলতে। কারন এই সব খাবারে বেশি তেল ব্যবহার হয়ে থাকে যার জন্য আপনার লিভার টা নষ্ট হতে পারে আর লিভার যদি ভালো না থাকে তাহলে শুধু নিজের চুল নয় তার সঙ্গে সঙ্গে নিজের পেট বা ত্বক কেরও সমস্যা দেখা দেয়। তাই আগে নিজের শরীরের দিকে খেয়াল রাখতে হয়। নিজের শরীর যদি ভাল থাকে তাহলে অবশ্যই চুল ও ত্বক দুটোই ভাল থাকবে।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন