পেটের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে মেনে চলুন এই নিয়ম!

0
how to reduce liver problem
লিভেরর সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়

হাজার সংবাদ ডেস্ক: যারা নিজের লিভারকে সতেজ রাখতে চান তার জন্য বেশ কিছু নিয়মকানুন মেনে চললে আপনার লিভার সতেজ থাকবে। আমরা বাঙালি তাই আমরা সবাই খাদ্য রসিক আর তাই বাঙ্গালীদের বেশি পেটের সমস্যায় ভুগতে হয়। কারণ ঠিক সময়ে ঠিক খাদ্য না খাওয়ায় অনেক সমস্যা হতে আবার জোর করে লোভে পরে খেলেও গ্যাস হতে পারে। অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার খাওয়ার ফলেও এই সমস্যাটা আসতে পারে।


তবে বেশ কিছু নিয়ম যদি আমরা মেনে চলি তাহলে সেই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় খুব তাড়াতাড়ি বা এরিয়ে চলা যায় গ্যাস বা অ্যাসিডিটি কে। সারাদিন যদি ঠিকঠাক নিয়ম মেনে চলা যায় তাহলে এসিডিটি অর্থাৎ যাদের রয়েছে সেই সমস্যাগুলো রয়েছে তা দূর হতে পারে। আমরা সবাই চেষ্টা করি নিজের শরীর সুস্থ রাখার কিন্তু একবারও ভেবে দেখি না যে শরীর সুস্থ রাখতে গেলে আগে নিজেদের পেট ঠিকঠাক রাখার দরকার। যদি পেটের কোন সমস্যা দেখা দেয় তাহলে শরীরের অন্যান্য অঙ্গ তার প্রভাব পড়ে যেমন পেটের সমস্যা থেকে মাথা যন্ত্রণা বা যাদের অ্যাসিডিটি বা গ্যাসের সমস্যা রয়েছে তাদের মাথাব্যথা আসে। অনেকের চোখের তলায় কালি পরে আবার অনেক সময় বিভিন্ন অঙ্গে ব্যথাও করে। এটা এসিডিটির সমস্যা থাকলে হয়ে থাকে তাই প্রত্যেকটা ক্ষেত্রে বেশ কিছু নিয়ম মেনে চললে সেই সব থেকে দূরে থাকা যায়।

যেমন ধরুন সকালবেলা উঠে খালি পেটে জলপান তাহলে আপনার শরীর ভালো থাকবে। যদি কারো এই সমস্যা থাকে তাহলে বেড টি খাওয়া উচিত নয় খালি পেতে। কিছু টিফিন করার পর চা খান তাহলে এই সমস্যা আসবেনা। খালি পেটে অনেকক্ষণ থাকলে শরীরের অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়। বা যাদের মধ্যে গ্যাসের সমস্যা রয়েছে খালি পেটে থাকলে গ্যাস বারে। তাই তাদের জন্য খালি পেতে থাকা একেবারে উচিত নই। বার বার অল্প অল্প করে কিছু খেলে ভালো থাকবেন। এই সমস্যাতে মিষ্টি খাবার একেবারেই বারণ। অনেকে সকালে উঠে সরবত পান করে তবে মিস্তি ছাড়া সরবত খান তাতে আপনার লিভার সমস্যা দূর হবে। খালি পেতে মিস্তি খেলে তা বাড়তে পারে। যদি আপনার অ্যাসিডের সমস্যা থাকে তাহলে ডাল জাতীয় জিনিস টাকে একটু এড়িয়ে চলুন যদি একেবারে বন্ধ করা উচিত নয়। ময়দা জাতীয় জিনিস থেকে উৎপন্ন হয় যে সমস্ত খাবার তা একটু বাদ দিয়ে চলা উচিত। সাথে সাথে মানা উচিত তৈলাক্ত খাবার যেমন ধরুন রাস্তার জাঙ্ক ফুড একদমই খাওয়া উচিত নয়।

গ্যাস কমানোর জন্য সকাল থেকে শুরু করে সন্ধ্যে পর্যন্ত আমরা অনেক নিয়ম পালন করে থাকি কিন্তু খুব বেশি ফাল মেলে না। তবে বেশ কিছু নিয়ম যদি আমরা সপ্তাহখানেক পালন করি তাহলে সেখান থেকে বেশ কিছু রোগ নিরাময় হতে পারে। যেমন ধরুন সকালবেলা যাদের এসিডিটি রয়েছে তারা গরম জলের মধ্যে লেবু দিয়ে খেতে পারো। বা সকালবেলা উঠে যেদিনকে লেবুর জল খাবে না সেদিন খেতে পারো মৌরি ভেজান জল। সকালে জল তা ছেঁকে খাবার পর সেই মৌরি তে জল দিয়ে রাখুন তা দুপুরে ভাত খাওয়ার পরে খাও তাহলে দেখবে তোমাদের এসিডিটি অনেক কমে গেছে। জতখন এই সমস্যা তে ভুগবেন অন্তত সেই কএকদিন একটু মিস্তি খাবার এড়িয়ে চলুন। আপনাকে টাইম টু টাইম খেতে হবে কিন্তু আপনি যদি ঠিকঠাক সময় খাওয়া-দাওয়া না করেন তার জন্য এই সমস্যা আসতে পারে। যেমন সকাল বেলা খালি পেটে বেশিক্ষণ থাকবেন না। অনেকটা সময় খালি পেটে থাকলে আপনার পাকস্থলীতে পিত্ত রস পরতে থাকে এবং সেটা এসিডে পরিণত হয়। তাই আপনার পাকস্থলী খালি রাখা চলবে না। টাইম টু টাইম সেটাকে খাবার দিয়ে ভরিয়ে রাখুন। ধরুন আপনার কাছে কোন খাবার নেই বেশ কিছুখন বাইরে আছেন সেই মুহূর্তে কিছু না থাকলে খালি জায়গা তা জল খেয়ে ভরিয়ে রাখুন তাতে গ্যাস বা অ্যাসিড থেকে নিরাময় পাবেন।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন