শরীর সুস্থ থাকবে তার আগে মানতে হবে এই নিময়!

0
good feet to good health. mental pressure is very dengarous thingac
কিভাবে শরীর সুস্থ রাখা যাই কি কি খাবন

হাজার সংবাদ ডেস্ক: আমাদের শরীর অসুস্থ থাকলে নিজেদের মনটা ভালো থাকে না। এই শরীর মন দুটোই একসঙ্গে ভালো রাখার কিছু তথ্য জেনে নেওয়া যাক। যেগুলো আমরা অনেকেই জানি না। এগুলো ঠিক ভাবে মেনে চললে শরীর সুস্থ হবে। তার সঙ্গে সঙ্গে মনটাও ভালো থাকবে। যেমন খাবার তালিকা সঙ্গে সঙ্গে সারা দিনের কিছু নিয়ম আমাদের মেনে চলতে হবে। দেখবেন আস্তে আস্তে সব সমস্যা থেকে দূরে সরে আসছেন নিজেই।

নিয়মিত আঁশযুক্ত শস্য প্রতিদিনের খাবার তালিকায় যোগ করুন তার সঙ্গে সঙ্গে নিয়ম করে নিন কোন দিন কোনটা খাবেন যেমন গম ভুট্টা এক একদিন এক এক রকম শস্যদানা খান। এই শস্যদানা সঙ্গে আপনি ফল দই ও খেতে পারেন এগুলো খেলে আপনার অনেকক্ষণ পেট ভার রাখতে সাহায্য করে। যে সময় যে ফল পাওয়া যায় সেরকম ভাবে আপনি ফল খেতে পারেন । প্রতিদিন সকালে এই খাবারগুলো নিয়ম করে খেতে পারলে কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা থেকেও দূরে থাকবেন। ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে আপনার শরীরে।

প্রতিদিন খাবার তালিকায় নিয়মিতভাবে রাখুন বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি ফলমূল নিয়মিত এ ধরনের খাবার খেলে হৃদরোগের সমস্যা ও শরীরের সুগার বাসা বাঁধতে পারবেনা। হাঁপানি ও এলার্জির মত অসুখ থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করে থাকে যারা নিয়মিত ভাবে নিজেদের খাদ্য তালিকায় নানা ধরনের শাকসবজি থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের ফলমূল নিয়মিতভাবে খেয়ে থাকে। শাক সবজির মধ্যে থেকেও বাঁধাকপি ফুলকপি খুব বড় গুণ আছে যেটা মানুষের শরীরে ক্যান্সার বাসা বাঁধতে দেয় না। বিভিন্ন ধরনের ফলমূল থেকে শুরু করে রুটি বাদাম মাছ-মাংস মিষ্টি আলু এ ধরনের খাবার নিয়মিত খাবার তালিকায় থাকলে, মস্তিষ্কের শর্করা ও গ্লুকোস ঘাটতি হয় না।

এসবের পাশাপাশি ডিমের কুসুম ও মস্তিষ্কের বিকাশ ঘটাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের বাদাম খেয়ে থাকলে হৃদরোগের সমস্যা হয় না। এই সব খাবারের পাশাপাশি প্রতিদিন খাবার তালিকায় অবশ্যই করে দুধ রাখুন দুধে রয়েছে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন যা আমাদের শরীরে দাঁত ও হাড় কে মজবুত রাখতে সাহায্য করে তার সঙ্গে সঙ্গে নিজেদের শরীরে এনার্জি টি বাড়ায়। তবে এটা ভাল করে মাথায় রাখুন যে কোনো রকমের খাবার রান্না তে যতটা পারেন কম তেলে তৈরি করুন রান্না। রান্না করা খাবারে পেঁয়াজ আদা রসুন এগুলো ব্যবহার করতে পারেন আদা ব্যাকটেরিয়া দূর করতে সাহায্য করে তাতে পেট পরিষ্কার থাকে ক্যান্সার দূর করতেও পেঁয়াজ রসুন খুব ভালো কাজ দেয়।

আয়োডিন ও ফ্লোরাইড যুক্ত লবণ খান। মিষ্টি জাতীয় পানীয় এড়িয়ে চলুন। খাবার ব্রাউন চিনি ব্যবহার করুন এতে উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস এর মত সমস্যায় পড়তে হবে না। নিয়মিত দুই থেকে তিন লিটার জল পান করুন। যে খাবারটা আমি খাবেন সেটা ভালো করে চিবিয়ে খান তাতে আপনার হজম তাড়াতাড়ি হবে। যেকোনো খাবার শুধু পেট ভরার জন্য খেতে হবে চিন্তা না করে যেসব খাবারে গুণগতমান বেশি সেই সব খাবার বেছে নিন খাদ্য তালিকায়।

প্রতিদিন একই রকম খাবার কখনোই খাবেন না আলাদা আলাদা ভাবে প্রতিদিনের খাবার তৈরি করে খান। প্রতিদিন একই রকম খাবার খেতে কারোরই ভালো লাগে না। খাওয়া-দাওয়া ছাড়া নিয়মিত শরীর চর্চা করুন। প্রতিদিন নিয়মিত সকালবেলা অন্ততপক্ষে কুড়ি থেকে ত্রিশ মিনিট হাঁটা চলা করুন। তার সঙ্গে সঙ্গে কিছু খালি হাতে এক্সাসাইজ করুন তাতে শরীর অনেকটা হালকা বোধ লাগবে নিজেকে অনেকটা ফুরফুরে মনে হবে। বাড়িতেই অল্পস্বল্প পরিশ্রম করুন যে পরিশ্রম করলে আপনার শরীর থেকে ঘাম ঝরে। নিয়মিত সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুমানোর প্রয়োজন। ঘুম কম হলে শরীর ও আস্তে আস্তে দুর্বল হতে শুরু করে। তাই শরীরের পক্ষে ঘুমটাও বিশেষভাবে প্রয়োজন। সুস্থ-সুন্দর ভাবে জীবন যাপন করার জন্য এ সমস্ত নিয়মগুলো মেনে চলুন দেখবেন উপকৃত হবেন।

আমাদের শরীর অসুস্থ থাকলে নিজেদের মনটা ভালো থাকে না। এই শরীর মন দুটোই একসঙ্গে ভালো রাখার কিছু তথ্য জেনে নেওয়া যাক। যেগুলো আমরা অনেকেই জানি না। এগুলো ঠিক ভাবে মেনে চললে শরীর সুস্থ হবে। তার সঙ্গে সঙ্গে মনটাও ভালো থাকবে। যেমন খাবার তালিকা সঙ্গে সঙ্গে সারা দিনের কিছু নিয়ম আমাদের মেনে চলতে হবে। দেখবেন আস্তে আস্তে সব সমস্যা থেকে দূরে সরে আসছেন নিজেই।

নিয়মিত আঁশযুক্ত শস্য প্রতিদিনের খাবার তালিকায় যোগ করুন তার সঙ্গে সঙ্গে নিয়ম করে নিন কোন দিন কোনটা খাবেন যেমন গম ভুট্টা এক একদিন এক এক রকম শস্যদানা খান। এই শস্যদানা সঙ্গে আপনি ফল দই ও খেতে পারেন এগুলো খেলে আপনার অনেকক্ষণ পেট ভার রাখতে সাহায্য করে। যে সময় যে ফল পাওয়া যায় সেরকম ভাবে আপনি ফল খেতে পারেন । প্রতিদিন সকালে এই খাবারগুলো নিয়ম করে খেতে পারলে কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা থেকেও দূরে থাকবেন। ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে আপনার শরীরে।

প্রতিদিন খাবার তালিকায় নিয়মিতভাবে রাখুন বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি ফলমূল নিয়মিত এ ধরনের খাবার খেলে হৃদরোগের সমস্যা ও শরীরের সুগার বাসা বাঁধতে পারবেনা। হাঁপানি ও এলার্জির মত অসুখ থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করে থাকে যারা নিয়মিত ভাবে নিজেদের খাদ্য তালিকায় নানা ধরনের শাকসবজি থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের ফলমূল নিয়মিতভাবে খেয়ে থাকে। শাক সবজির মধ্যে থেকেও বাঁধাকপি ফুলকপি খুব বড় গুণ আছে যেটা মানুষের শরীরে ক্যান্সার বাসা বাঁধতে দেয় না। বিভিন্ন ধরনের ফলমূল থেকে শুরু করে রুটি বাদাম মাছ-মাংস মিষ্টি আলু এ ধরনের খাবার নিয়মিত খাবার তালিকায় থাকলে, মস্তিষ্কের শর্করা ও গ্লুকোস ঘাটতি হয় না।

এসবের পাশাপাশি ডিমের কুসুম ও মস্তিষ্কের বিকাশ ঘটাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের বাদাম খেয়ে থাকলে হৃদরোগের সমস্যা হয় না। এই সব খাবারের পাশাপাশি প্রতিদিন খাবার তালিকায় অবশ্যই করে দুধ রাখুন দুধে রয়েছে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন যা আমাদের শরীরে দাঁত ও হাড় কে মজবুত রাখতে সাহায্য করে তার সঙ্গে সঙ্গে নিজেদের শরীরে এনার্জি টি বাড়ায়। তবে এটা ভাল করে মাথায় রাখুন যে কোনো রকমের খাবার রান্না তে যতটা পারেন কম তেলে তৈরি করুন রান্না। রান্না করা খাবারে পেঁয়াজ আদা রসুন এগুলো ব্যবহার করতে পারেন আদা ব্যাকটেরিয়া দূর করতে সাহায্য করে তাতে পেট পরিষ্কার থাকে ক্যান্সার দূর করতেও পেঁয়াজ রসুন খুব ভালো কাজ দেয়।

আয়োডিন ও ফ্লোরাইড যুক্ত লবণ খান। মিষ্টি জাতীয় পানীয় এড়িয়ে চলুন। খাবার ব্রাউন চিনি ব্যবহার করুন এতে উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস এর মত সমস্যায় পড়তে হবে না। নিয়মিত দুই থেকে তিন লিটার জল পান করুন। যে খাবারটা আমি খাবেন সেটা ভালো করে চিবিয়ে খান তাতে আপনার হজম তাড়াতাড়ি হবে। যেকোনো খাবার শুধু পেট ভরার জন্য খেতে হবে চিন্তা না করে যেসব খাবারে গুণগতমান বেশি সেই সব খাবার বেছে নিন খাদ্য তালিকায়।

প্রতিদিন একই রকম খাবার কখনোই খাবেন না আলাদা আলাদা ভাবে প্রতিদিনের খাবার তৈরি করে খান। প্রতিদিন একই রকম খাবার খেতে কারোরই ভালো লাগে না। খাওয়া-দাওয়া ছাড়া নিয়মিত শরীর চর্চা করুন। প্রতিদিন নিয়মিত সকালবেলা অন্ততপক্ষে কুড়ি থেকে ত্রিশ মিনিট হাঁটা চলা করুন। তার সঙ্গে সঙ্গে কিছু খালি হাতে এক্সাসাইজ করুন তাতে শরীর অনেকটা হালকা বোধ লাগবে নিজেকে অনেকটা ফুরফুরে মনে হবে। বাড়িতেই অল্পস্বল্প পরিশ্রম করুন যে পরিশ্রম করলে আপনার শরীর থেকে ঘাম ঝরে। নিয়মিত সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুমানোর প্রয়োজন। ঘুম কম হলে শরীর ও আস্তে আস্তে দুর্বল হতে শুরু করে। তাই শরীরের পক্ষে ঘুমটাও বিশেষভাবে প্রয়োজন। সুস্থ-সুন্দর ভাবে জীবন যাপন করার জন্য এ সমস্ত নিয়মগুলো মেনে চলুন দেখবেন উপকৃত হবেন।

হাজার সংবাদ ডেস্ক: আমাদের শরীর অসুস্থ থাকলে নিজেদের মনটা ভালো থাকে না। এই শরীর মন দুটোই একসঙ্গে ভালো রাখার কিছু তথ্য জেনে নেওয়া যাক। যেগুলো আমরা অনেকেই জানি না। এগুলো ঠিক ভাবে মেনে চললে শরীর সুস্থ হবে। তার সঙ্গে সঙ্গে মনটাও ভালো থাকবে। যেমন খাবার তালিকা সঙ্গে সঙ্গে সারা দিনের কিছু নিয়ম আমাদের মেনে চলতে হবে। দেখবেন আস্তে আস্তে সব সমস্যা থেকে দূরে সরে আসছেন নিজেই।

নিয়মিত আঁশযুক্ত শস্য প্রতিদিনের খাবার তালিকায় যোগ করুন তার সঙ্গে সঙ্গে নিয়ম করে নিন কোন দিন কোনটা খাবেন যেমন গম ভুট্টা এক একদিন এক এক রকম শস্যদানা খান। এই শস্যদানা সঙ্গে আপনি ফল দই ও খেতে পারেন এগুলো খেলে আপনার অনেকক্ষণ পেট ভার রাখতে সাহায্য করে। যে সময় যে ফল পাওয়া যায় সেরকম ভাবে আপনি ফল খেতে পারেন । প্রতিদিন সকালে এই খাবারগুলো নিয়ম করে খেতে পারলে কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা থেকেও দূরে থাকবেন। ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে আপনার শরীরে।

প্রতিদিন খাবার তালিকায় নিয়মিতভাবে রাখুন বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি ফলমূল নিয়মিত এ ধরনের খাবার খেলে হৃদরোগের সমস্যা ও শরীরের সুগার বাসা বাঁধতে পারবেনা। হাঁপানি ও এলার্জির মত অসুখ থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করে থাকে যারা নিয়মিত ভাবে নিজেদের খাদ্য তালিকায় নানা ধরনের শাকসবজি থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের ফলমূল নিয়মিতভাবে খেয়ে থাকে। শাক সবজির মধ্যে থেকেও বাঁধাকপি ফুলকপি খুব বড় গুণ আছে যেটা মানুষের শরীরে ক্যান্সার বাসা বাঁধতে দেয় না। বিভিন্ন ধরনের ফলমূল থেকে শুরু করে রুটি বাদাম মাছ-মাংস মিষ্টি আলু এ ধরনের খাবার নিয়মিত খাবার তালিকায় থাকলে, মস্তিষ্কের শর্করা ও গ্লুকোস ঘাটতি হয় না।

এসবের পাশাপাশি ডিমের কুসুম ও মস্তিষ্কের বিকাশ ঘটাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের বাদাম খেয়ে থাকলে হৃদরোগের সমস্যা হয় না। এই সব খাবারের পাশাপাশি প্রতিদিন খাবার তালিকায় অবশ্যই করে দুধ রাখুন দুধে রয়েছে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন যা আমাদের শরীরে দাঁত ও হাড় কে মজবুত রাখতে সাহায্য করে তার সঙ্গে সঙ্গে নিজেদের শরীরে এনার্জি টি বাড়ায়। তবে এটা ভাল করে মাথায় রাখুন যে কোনো রকমের খাবার রান্না তে যতটা পারেন কম তেলে তৈরি করুন রান্না। রান্না করা খাবারে পেঁয়াজ আদা রসুন এগুলো ব্যবহার করতে পারেন আদা ব্যাকটেরিয়া দূর করতে সাহায্য করে তাতে পেট পরিষ্কার থাকে ক্যান্সার দূর করতেও পেঁয়াজ রসুন খুব ভালো কাজ দেয়।

আয়োডিন ও ফ্লোরাইড যুক্ত লবণ খান। মিষ্টি জাতীয় পানীয় এড়িয়ে চলুন। খাবার ব্রাউন চিনি ব্যবহার করুন এতে উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস এর মত সমস্যায় পড়তে হবে না। নিয়মিত দুই থেকে তিন লিটার জল পান করুন। যে খাবারটা আমি খাবেন সেটা ভালো করে চিবিয়ে খান তাতে আপনার হজম তাড়াতাড়ি হবে। যেকোনো খাবার শুধু পেট ভরার জন্য খেতে হবে চিন্তা না করে যেসব খাবারে গুণগতমান বেশি সেই সব খাবার বেছে নিন খাদ্য তালিকায়।

প্রতিদিন একই রকম খাবার কখনোই খাবেন না আলাদা আলাদা ভাবে প্রতিদিনের খাবার তৈরি করে খান। প্রতিদিন একই রকম খাবার খেতে কারোরই ভালো লাগে না। খাওয়া-দাওয়া ছাড়া নিয়মিত শরীর চর্চা করুন। প্রতিদিন নিয়মিত সকালবেলা অন্ততপক্ষে কুড়ি থেকে ত্রিশ মিনিট হাঁটা চলা করুন। তার সঙ্গে সঙ্গে কিছু খালি হাতে এক্সাসাইজ করুন তাতে শরীর অনেকটা হালকা বোধ লাগবে নিজেকে অনেকটা ফুরফুরে মনে হবে। বাড়িতেই অল্পস্বল্প পরিশ্রম করুন যে পরিশ্রম করলে আপনার শরীর থেকে ঘাম ঝরে। নিয়মিত সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুমানোর প্রয়োজন। ঘুম কম হলে শরীর ও আস্তে আস্তে দুর্বল হতে শুরু করে। তাই শরীরের পক্ষে ঘুমটাও বিশেষভাবে প্রয়োজন। সুস্থ-সুন্দর ভাবে জীবন যাপন করার জন্য এ সমস্ত নিয়মগুলো মেনে চলুন দেখবেন উপকৃত হবেন।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন