পুজোর আগেই চলতে পারে পূর্ব রেল! অক্টোবরের মঝামাঝি থেকে ট্রেন চলার নির্দেশ

0
Eastern railway runs from mid-October
পূর্ব রেল

হাজার সংবাদ ডেস্ক: এদিকে পুজোর আমেজ আর তার মধ্যে ট্রেন চলার নির্দেশ মিলতে পারে। রেল বোর্ডের কাছে পূর্ব রেলওয়ে থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে রেল বোর্ডকে। পুজোর আগেই হয়তো মিলতে পারে ট্রেন চলার নির্দেশ। যদিও এই নির্দেশ দেওয়ার আগে রেল বোর্ড সবার আগে রাজ্যের সাথে কথা বলবে যদি রাজ্য চায় তাহলে অবশ্যই পূর্ব রেলওয়ে থেকে বেশ কয়েকটি ট্রেন চালাতে পারে। সাধারণ মানুষের অনেক বেশি সুবিধা হবে তার সাথে রেল ইনকাম হবে প্রায় ২৩ কোটি টাকা প্রতিমাসে। তাই ট্রেন চলেছে এমন কিছু অসুবিধা এমনটাও নয় শুধুমাত্র জনসাধারণের সুবিধার্থে যে ট্রেন চালাতে হবে তা নয় তার সাথে ইনকাম হবে।

বুধবারের খবর অনুযায়ী এইরকমই নির্দেশ মিলেছে যে পূর্ব রেল থেকে পাঠানো চিঠি অনুযায়ী নির্দেশ দিতে পারে পুজোর আগে ট্রেন চলার জন্য। পুজোর আমেজ বাঙালির সেরা উৎসব তার মধ্যে ট্রেন চললে মানুষের সুবিধা যেমন হবে তার সাথে সুবিধা হবে সাধারণ মানুষের। শুধুমাত্র পুজোর জন্য ট্রেন চালু হচ্ছে এমনটাও নয় সেখানে বিভিন্ন তীর্থস্থান এবং পর্যটক কেন্দ্র থেকে যে ট্রেনগুলো আসে সেই ট্রেন চালানোর জন্য আবেদন জানিয়েছে পূর্ব রেল এবং তা ছাড়াও চিকিৎসার জন্য সাধারণ ট্রেন গুলো চালু করার কথা আবেদন করা হয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে দার্জিলিং মেল চেন্নাই এছাড়াও বেশ কয়েকটি। তেরোটি বিশেষ ট্রেন চালানোর আবেদন জানানো হয়েছে। কোন কোন রুটের জন্য এই ১৩ টি ট্রেনের আবেদন জানিয়েছে পূর্ব রেল বোর্ড। তার মধ্যে রয়েছে সরাইঘাট, দার্জিলিং মেইল, ফারাক্কা মেইল এর ছাড়াও গঙ্গাসাগর এক্সপ্রেস রয়েছে অর্থাৎ যে সমস্ত ট্রেনের যাত্রীরা তীর্থ করতে যাই বা পর্যটন কেন্দ্র গুলির সাথে যুক্ত সেই সমস্ত ট্রেন গুলি চালানোর আবেদন জানিয়েছে এবং তার সাথে সাথে যারা মূলত চিকিৎসার জন্য যে সমস্ত ট্রেন চালানো উচিত সেগুলো যথেষ্ট ব্যস্ততম এখানকার জন্য।

ট্রেনগুলো চালানোর আবেদন করা হয়েছে তা অক্টোবরের মাঝামাঝি অবস্থা থেকে চলতে পারে। পূর্ব রেল এইরকমই নির্দেশ পাওয়া যাচ্ছে আর এখনও পর্যন্ত সেই রকমই বার্তা দিয়েছে পূর্ব রেল। যদিও পুরোপুরি ঠিক করবে রাজ্য এখানে ট্রেন চলা সম্ভব কি সম্ভব নয়। করোণা পরিস্থিতিতে বহুদিন ট্রেন বন্ধ থাকায় তাতে অসুবিধায় পড়েছে সাধারণ মানুষ বাইরে সফর করতে পারছেন না বহু মানুষ এবং দরকার থাকলেও সেখানে কোনভাবেই যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। তার মধ্যে যারা চিকিৎসাধীন বাইরের দেশের সাথে বাইরের রাজ্য গুলির সাথে তারা তো কোনভাবেই যেতে পারছে না। এই তেরোটি ট্রেন যদি চালানো হয় তাদের সুবিধা হবে অন্যান্য মানুষের। কারণ কলকাতা সহ আরো বেশ কয়েকটি জায়গা থেকে এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা সহ উত্তর ২৪ পরগনা এইরকম যে সমস্ত জেলা গুলি রয়েছে সেই জেলা থেকে বহু মানুষ বাইরে চিকিৎসা করতে যায়। যেমন তার মধ্যে ভেলোর, চেন্নাই এইরকম আরও বেশ কয়েকটি জায়গা ব্যাঙ্গালোর রয়েছে। সেখানে চিকিৎসাধীন এর জন্য তাদের যেতে হয় এই সমস্ত ট্রেন চললে তাতে সুবিধা হবে সাধারণ মানুষের। তা ছাড়াও রয়েছে ব্যস্ততম গঙ্গাসাগর এক্সপ্রেস ট্রেন। মানুষের সুবিধা অনেক বাড়বে তার জন্যই সেরকমই চিন্তাভাবনা নেওয়া হয়েছে এবং চিঠি পাঠানো হয়েছে। এবার রাজ্য এবং রেল বোর্ডের আলোচনায় ঠিক করা হবে আদৌ পূর্ব রেল চলবে কি চলবে না। পুজোর আগেই যদি ট্রেন চলে সেরকমই আশঙ্কা করা যাচ্ছে।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন