দর্শনার্থীদের সুরক্ষার পুরো দায়িত্ব নিতে হবে পুজো কমিটিকে! জানিয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

0
New normal durga puja
দুর্গা পুজা

হাজার সংবাদ ডেস্ক: পুজো যে হচ্ছে এটা একেবারেই নিশ্চিত। নিউ নরমাল নিয়মে পুজো নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর অনেক রকম বক্তব্য ছিল এবং সেই বক্তব্য মেনেই রাজ্য পুজো হচ্ছে। দুর্গাপূজা হচ্ছে বাঙালির সেরা উৎসব এবং সেই উৎসবে কিছু নিয়ম মানতে হবে কারণ করোনা কে আটকাতে গেলে নিজেদেরকে অনেক বেশি সচেতন হওয়া দরকার। তা নিয়েও মুখ্যমন্ত্রী বারবার সবাইকে জানিয়েছে সবাই যেন সুরক্ষিত থাকে এবং প্রত্যেকে প্রত্যেকের জন্য লড়াই করে এবং করণা সংক্রমণ কে দূরে সরিয়ে পুজোতে আনন্দ করতে গেলে মানতে হবে কিছু নিয়ম। তার জন্যই প্রথম থেকে শুরু করে এখনো পর্যন্ত কলকাতা পুজো এবং বাঙালির সেরা উৎসব নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একরাশ নিয়ম জানা গিয়েছিল।

তাতেও রেহাই নেই। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে জানিয়েছেন যে প্রত্যেক পুজো কমিটিকে মানতে হবে বাঁধাধরা বেশ কিছু নিয়ম এবং নিজেদেরকে সুরক্ষিত থাকতে হবে তার সাথে প্রত্যেকটা মানুষ যাতে সুরক্ষিত থাকে এবং পুজো প্যান্ডেলে আশা প্রত্যেকটা মানুষকে সুরক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে পুজো কমিটিকে। অনেক বেশি সজাগ থাকুন এবং প্রত্যেকটা ক্ষেত্রে পুজো কমিটি গুলো যেন সবার পাশে দাঁড়াক এবং প্রত্যেকটা পুজো কমিটি আলাদা আলাদা ভাবে। বিভিন্ন রকম ব্যবস্থা করা হোক যাতে কোনো সংক্রমণ কে দূরে রাখা যায়। নিজেরা যতটা বেশি সচেতন থাকবেন তত বেশি সচেতন নিজেরা হতে পারবেন কিন্তু সচেতনতায় সবথেকে বড় কারণ সংক্রমণকে দূরে রাখতে গেলে নিজেদেরকে অনেক বেশি সজাগ হতে হবে তার জন্য তিনি বিশেষত পুজা কমিটিগুলোর কাছে অনেক বেশি নির্দেশ দিয়েছে এবং সেই নির্দেশ মেনে চলতে পুজো কমিটিগুলো এক পায়ে দাঁড়িয়ে।

খড়্গপুরে এক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এইরকমই নির্দেশ দিয়েছে। তিনি জানিয়েছে প্রত্যেকটা পুজো কমিটি যেন প্রত্যেক মানুষের সুরক্ষার দায়িত্ব নেয় এবং তার সাথে সাথে পুজো করছে সেই নিয়ম তাদেরকে অনেক বেশি বিধি মেনে চলতে হবে সাধারণ মানুষের জন্য। প্রত্যেকটা পুজো কমিটি তাদের নিয়ম মেনে প্যান্ডেলের মধ্যে দর্শনার্থীদের প্রবেশ করাবে এবং তার সাথে সাথে কিভাবে তাদের বিধি-নিষেধ রক্ষা করা সম্ভব। তার ব্যবস্থা পুরোপুরি নেবে প্রত্যেকটা পুজো কমিটি তার জন্য রাজ্য থেকে প্রত্যেক পুজো কমিটির জন্য আলাদা ভাবে টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। পুজো কমিটিতে যাতে কোনো রকম অসুবিধা না হয় কারণ অন্যান্য বছরের ন্যায় এ বছর তার থেকে বেশি টাকা রাজ্য প্রত্যেক পুজো কমিটিকে দেবে। যাতে করণা সংক্রমণে খুব স্বাভাবিক ভাবে সম্পন্ন হয় তার সাথেই নিউ নরমাল নিয়মপুজো পরিক্রমা পরিস্থিতি খারাপ হলেও বাঙালির সেরা উৎসব দুর্গাপূজো তা কোনোভাবেই বন্ধ করা সম্ভব নয়। সেরকমই রাজ্য থেকে জানানো হয়েছে এবং সেই নির্দেশ এই সমস্ত পুজো কমিটিকে নিয়ম মেনে কোথাও বা স্যানিটাইজার টানেল আবার কোথাও স্যানিটাইজার ক্যানন এছাড়াও রয়েছে হ্যান্ড গ্লাভস দূরত্ব বৃদ্ধি এবং নিজেদের সুরক্ষার জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং এর ব্যবস্থা করবে সমস্ত পুজো কমিটি।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন