রাজ ভবনে ছিল চাঁদের হাট! জাগদিস ধনখর তুলে দিল পুরস্কার দিতিপ্রিয়ার হাতে

0
debapriya won a prize in rajvaban
রাসমনি ধারাবাহিকের দেবপ্রিয়া

হাজার সংবাদ ডেস্ক: রাজভবনে ছিল চাঁদের হাট। রাজ্যপালের থেকে পুরস্কার নিয়েছে দিতিপ্রিয়া। বাড়ির মেয়ে শুধুমাত্র তার গুণ অভিনয় এবং তার রূপের বহরে পাচ্ছে না সেই পুরস্কার। সেই পুরস্কার এর মধ্যে রয়েছে অনেক বর্ণনা আজ পর্যন্ত হয়তো কোনো ক্ষেত্রেই হয়ে ওঠেনি। সেই জন্যই দশের এক হয়েও সেই চাঁদের হাটের একমাত্র নক্ষত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে আজকের দিতিপ্রিয়া।

আলোর রোশনাই এবং তার সাথে ঝাড়বাতির আলোয় মুখরিত হয়েছে সেই অনুষ্ঠান। একের পর এক বিভিন্ন অভিনেতা-অভিনেত্রী প্রতিষ্ঠিত অভিনেতা-অভিনেত্রীরা রয়েছে। তার মধ্যে যারা বিভিন্ন রকম ভাবে তাকে নতুন নতুন চিন্তা ভাবনা দিয়েছে আরো বড়ো হবার দিশা দেখিয়েছে। তার সাথে সাথে তার এতদিনের জার্নির অনেক বড় শুভ কামনা করেছে। যদিও রাজ্যপালের হাত থেকে পুরস্কার শুধুমাত্র দিতিপ্রিয়া নিচ্ছে তা নয় তা ছাড়াও আরও তিনজনকে এই পুরস্কারে পুরস্কৃত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে রয়েছে একজন বিদেশী এবং তার মধ্যে আরও একজন রয়েছে বর্ধমান বাস শিক্ষক এবং করণা পরিস্থিতিতে মৃত মানুষের নেওয়ার জন্য ছুটে বেড়িয়েছে হন্যে হয়ে নিজের শরীরের কথা মানসিকতার কথা চিন্তা না করে ভয় না পেয়ে যুদ্ধ করে গিয়েছে। সেই সময় ঠিক সেইরকম একটা মানুষ আর তার সাথে রয়েছে দিতিপ্রিয়া হয়তো আপনারা ভাবছেন যেখানে শিক্ষক-শিক্ষিকারা রয়েছে। তার সাথে রয়েছে একজন যোদ্ধার সাথে কেন এই পুরস্কার পাচ্ছে সব ক্ষেত্রে হয়তো পদ্মভূষণ পায়না সভায়। তবে আজকে রাজ্যপালের হাত থেকে পুরস্কার নেওয়ার জন্য রয়েছে আরো অনেক কারণ।

জাগদিশ ধনখর বলেছেন যে এই প্রথম তিনি দেখলেন কোন এক চরিত্রে বাল্যকাল থেকে এখন পর্যন্ত একই সাথে অভিনয় করে যাচ্ছেন। একই চরিত্রে স্বাভাবিক ভাবে হয়ে আসেনি বিভিন্ন চরিত্রে স্বাভাবিকভাবে কোন আনুষ্ঠানিক চরিত্রে অভিনয় করতেই হয়। বিশেষত ধারাবাহিকের ক্ষেত্রে সেখানে অবশ্যই পরিবর্তন হয়েছে মুখের কিন্তু রানী রাসমণি সিরিয়ালে বাল্যকাল থেকে পৌঢ় কাল পর্যন্ত একই মানুষ অভিনয় করেছেন। একই চরিত্রে প্রত্যেকটা সময় তাকে নতুন নতুন করে তৈরি করতে হয়েছে। দর্শকদের সামনে ভালো নাম এবং যশ পাওয়ার জন্য শুধু নয় নিজেকে অনেক শিক্ষিত করে তুলতে পারলেই তবে সম্ভব। এই কাজ জানিয়েছেন জাগদিশ ধনখর। তিনি এও জানিয়েছেন শুধুমাত্র অভিনয়ের থাকলেই নয় তার সাথে দরকার মনের জোর যা তার মধ্যে রয়েছে।

প্রথমেই নাকি তাকে নেওয়া হয়েছিল শুধুমাত্র বাল্যকালের জন্য কিন্তু দর্শক এতটাই উদ্বিগ্ন ছিল তার সিরিয়াল দেখার জন্য সেখান থেকে আলাদা করে আর পাল্টানো হয়নি তাকে বরং আরো বেশি করে তাকে উৎসাহ দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী অভিনয়ের জন্য এই করতে করতে তার বয়স কালের অভিনয় চলে এসেছে সেখানেও সে পিছপা হয়নি। একই রকমভাবে মানুষের মনোনীত করে চলেছে দিতিপ্রিয়া আর তার জন্যই আজ এই পুরস্কার। কিন্তু আজও এখনো পর্যন্ত কেউ বিরক্ত হয়ে ওঠেনি। এই রাসমণি সিরিয়ালে বরং প্রত্যেকটা মানুষ এই সিরিয়ালটি দেখে। তাই এই সিরিয়ালের টিআরপি সবসময় উপরে। সেই সূত্রে বলতে গেলে দিতিপ্রিয়া আজ অনেক কিছুই করেছে এই সিরিয়ালের জন্য এবং শুধু তাই নয় নিজের উচ্চ মাধ্যমিক মাধ্যমিক এই সমস্ত পরীক্ষা দিয়েছে এই সিরিয়াল লাইফে থাকাকালীন। টানা তিন বছর ধরে একটা সিরিয়াল চলছে যেখানে একের পর এক পরিবর্তন হয়েছে বয়স কালের ও সময়কালের। কিন্তু তবুও পরিবর্তন হয়নি অভিনীত সেই মানুষটির। মানুষটি একের পর এক অভিনয়ের জগতে থাকতে থাকতে এক যুগ পার হয়ে আরেক যুগে পা দিয়েও পরিবর্তন হতে হয়নি এই পুরস্কার।

নিজের জীবনের বেশকিছু যুদ্ধের জন্য কখনো সিরিয়ালকে কম্প্রোমাইজ করেনি বরং প্রত্যেকটা পরিস্থিতিতে নিজেকে অনেক বেশি কঠোর ভাবে পরিশ্রম করে তুলেছে দিতিপ্রিয়া। তাই সে আজ ঘরের মেয়ে। ঘরে যেমন ভেবেছে একইভাবে সিরিয়াল কেউ নিজের বাড়ি ভেবে নিয়েছে তাই প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এবং তিনি অনেক জ্ঞানের কথা শুনিয়েছে দিতিপ্রিয়া কে তিনিও জানিয়েছে যে ইনকামের সমস্ত টাকা অর্থাৎ সিরিয়াল থেকে আসা সমস্ত টাকা সিরিয়ালের জন্য নয় নিজের ক্যারিয়ারের জন্য বাঁচাও।

তাহলে তুমি আরো বড় হবে অনেক বড় বড় অভিনেতা অভিনেত্রীরা ও তাঁকে আশীর্বাদ করেছে এবং সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে। তার শুভ কামনা করেছেন আজকের দিনটি তার পাওনা কোথাও হয়তো এটুকু পাওয়ার ছিল এত কম এত ভালো অভিনয় এভাবে নিজের সবটা বিসর্জন দিয়েও করতে পারবে তা কেউ ভেবে ওঠেনি। তাই আজ তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ সারাবাংলা রাসমণি সিরিয়াল আজ বিখ্যাত এর আগেও রাসমণি সিরিয়াল হয়েছে। কিন্তু একের পর এক বদলেছে মুখ কিন্তু এই সিরিয়ালে বদলাইনি মুখ আর প্রত্যেকটা পদক্ষেপে এগোতে হয়েছে তাকে। তাকে যুদ্ধ করতে হয়েছে একের পর এক তার জন্যই আজ এই পুরস্কার শুধুমাত্র তারই প্রাপ্য।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন