করোনায় মুক্ত নিউজিল্যান্ড, খুলে দিচ্ছে সমস্ত ব্যবসা বানিজ্য

0
new zealand corona news
করোনা মুক্তি পেল নিউজিল্যান্ড

হাজার সংবাদ ডেস্ক: করোনা থেকে মুক্তি পেল নিউজিল্যান্ড নতুন করে আর কোন আক্রান্তের সংখ্যা নেই সেরে উঠেছে সমস্ত আক্রান্তরাও। করোনা নিয়ে এই প্রথম দেশ তার সমস্ত লকডাউন নিয়ম বিধি তুলে নিয়ে আবারো বাণিজ্যিক ব্যবস্থায় যথেষ্টভাবে মন দিচ্ছে।

সবথেকে প্রথম অগ্রণী ভূমিকা নিয়ে নিউজিল্যান্ড লকডাউন তুলে নিয়ে নতুন করে সবকিছু চালু রেখে সবুজ বার্তা দিয়েছে। ৭ সপ্তাহ লকডাউন পরে ১৪ই মে লকডাউন খুলেছে, জানিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডেন। সুত্রের খবর অনুযায়ী এখন সেখানে কোনো করোনা আক্রান্ত নেই। যদিও সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা অনেক কম ছিল, প্রায় দেড় থেকে দুই হাজার এবং মৃত্যু হয়েছে মাত্র ২২ জনের।এখন নাতুন করে সংক্রমন হছে না। তাই সেখানে আক্রান্তের হার যথেষ্ট কম রয়েছে। তা সম্ভব হয়েছে সেখানকার জনসাধারনের একতাবদ্ধ লকডাউন মেনে চলার জন্য।

সেখানে এই মারন ভাইরাসের প্রকোপ অনেকটাই কমেছে বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞরা। যদিও এই ভাইরাস একেবারে মুক্ত করা সম্ভব নয়। তবে সেদিনই মুক্ত হবে এই ভাইরাস রোধ করার জন্য তৈরি হবে পর্যাপ্ত মেডিসিন।

পৃথিবীতে এখন প্রায় প্রত্যেকটা দেশ কঠোরভাবে লকডাউন পালন করছে, কিন্তু নিউজিল্যান্ডে তা এখন বিরতি পর্বে। এখন লকডাউন খুলেছে নিউজিল্যান্ডে শুরু হয়েছে সমস্ত কাজ কর্ম। স্বস্তির দীর্ঘ নিস্বাস ফেলে আগের মত সবুজ বাতি জ্বালিয়ে এগিয়ে যেতে চলেছে। যদিও বন্ধ রয়েছে বাইরের দেশের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা, অন্য দেশগুলো যতক্ষণ করোনা মুক্ত হচ্ছে। যদিও সীমান্ত গুলি এখনো বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা।

তিনি জানিয়েছেন তারা যথেষ্ট একতাবদ্ধভাবে লকডাউন পালন করে করোনা মুক্ত দেশ আবার ফিরিয়ে এনেছে তাই তাদের দেশে এখন আর সামাজিক দূরত্ব বিধি মানার নিয়মও নেই। দেশ আবার ফিরে যাবে পুরানো নিয়মে। তার মতে এতো দিন লকডাউন থাকায় দেশের অর্থনৈতিক খুব নাজেহাল অবস্থা। তাই সংক্রমনের ভয় না থাকায় সমস্ত অর্থনীতি এবং অফিস-আদালত যথেষ্ট সতর্কতা মেনে চলছে বলে জানিয়েছে।

সেই দেশের নির্দেশ অনুযায়ী সমস্ত জনসাধানরকে নির্দেশ দিয়েছেন যে কাদের সাথে আলাপ পরিচয় হচ্ছে এবং কাদের সাথে মেলামেশা হচ্ছে সেটা নিয়ে যথেষ্ট সতর্ক অবলম্বন করতে। যেহেতু এখন তাদের দেশে করোনা নেই তাই তারা লকডাউন তুলে নিয়ে বেশ কিছু বিধিনিশেধ মেনে নতুন করে কাজে যোগ দেবে এবং অর্থনীতি নিয়ে আবারো ভাবনা শুরু করবে তারা।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন