তামিলনাড়ু ও কেরালাতে সতর্ক বার্তা বুরেভি ঘূর্ণি ঝরের কারনে!

0
burevi cyclone
বুরেভি ঘূর্ণি ঝড়

হাজার সংবাদ ডেস্ক: একে তো করোণা পরিস্থিতি আর তার মধ্যেই বেশ কিছুদিন আগেই ঝড় হয়ে গেছে। তামিলনাড়ু ও গুজরাট সহ বেস কয়েকটি রাজ্যে ঝরে বিপর্জস্ত হয়েছিল মানুষ। আর এবারে তামিলনাড়ু এবং কেরালার উপর যথেষ্ট সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছিল বুরেভি ঘূর্ণিঝড়ের জন্য। এই ঘূর্ণিঝড়ের জন্য সেভাবে প্রভাব না ফেললেও খুব বড় রকম ক্ষতি না হলেও তার আগে থেকেই প্রশাসন থেকে যথেষ্ট সচেতন বার্তা দেওয়া হয়েছিল। কেরালা এবং তামিলনাড়ুর ওপর এই ঘূর্ণিঝড় প্রথমে উত্তর-পশ্চিম দিক আছড়ে পরবে বলে জানিয়েছিল ৪০ থেকে ৫0 কিলোমিটার বেগে থাকবে। সেই ঝড়ের গতিবেগ তবে তা বাড়তেও পারে যদি তার না বাড়ে তাহলে উত্তর দক্ষিণে সেই ঝড় পরিবর্তন যদি করে তাহলে নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। যদিও সেই ঝড় নিয়ে আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছিল ওই যে ঝড়ের গতিবেগ অনেক কমে যেতে পারে কিন্তু তবুও তার আগে থেকে তামিলনাড়ু ও কেরালার তিনটি বিমানবন্দর বন্ধ রাখা হয়েছে 5 ডিসেম্বর। পর্যন্ত ৩ তারিখে নিম্নচাপের সৃষ্টি হওয়া এই ঘূর্ণিঝড়ের জন্য ৪ ডিসেম্বর যথেষ্ট ভালো রকম ভাবে প্রভাব পড়তে পারে তামিলনাড়ুর ওপর। তবে তা কতটা ভয়াবহ হতে পারে তা জানা নেই।

আবহাওয়া দপ্তরের খবর অনুযায়ী মানুষের অনেক বড় বড় শিক্ষা হয়েছে কারণ কোন ভাবেই বোঝা যায়নি এত বড় রকম ঝড়ের প্রভাব হতে পারে ঠিক সেভাবেই ঝড়ের প্রভাবে মানুষের ভীষণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বেশ কিছুদিন আগে আরেকটি ঝড়ে বিপর্যস্ত অবস্থায় পড়েছিল তামিলনাড়ু সহ বেশ কয়েকটি রাজ্য। এবার সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে তামিলনাড়ু কেরালার উপর। এই সতর্কবার্তা জারি করার মূলে রয়েছে বেশ কয়েকটি ঝড়ের উদাহরণ। আর এই সতর্কবার্তা জানানো হয়েছে ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার বেগে ঝড় হলেও যদি সেটি নিম্নচাপে পরিণত না হয় তাহলে অনেক বড় রকম ভয়াবহ অবস্থা হতে পারে।

আর তার জন্য আগে থেকে বেশ কয়েকটি বিমানবন্দর এবং সমুদ্র বেরোনো বারণ বলে জানিয়ে দিয়েছিল। আবহাওয়া দপ্তর থেকে তবে উত্তর-পশ্চিমে যখন এই দিক পরিবর্তন করেছিল তখন ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার গতিবেগ ছিল তবে সেটি ৪ তারিখে অর্থাৎ ৮ ডিসেম্বর উত্তর-পূর্ব দিক থেকে ঘুরে নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে তাই ভয়ের কারণ অনেকটা কমলেও তা আবারও পরিবর্তন করে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব নিতে পারে তার জন্য আগে থেকে সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। তামিলনাড়ু কেরালা এবং আরো পাঁচটি জেলার সমস্ত কিছু বন্ধ রাখা হয়েছে এবং আগে থেকে জানানো হয়েছে যে সমস্ত মানুষ যাতে উঁচু জায়গায় থাকে এবং ফাঁকা বাড়িতে থাকার কথা জানানো হয়েছে। কাঁচা বাড়িতে যাতে না থাকে এবং বাইরে বেরোনো নিষেধ। এই সময়ের জন্য সেখানে ভালো রকম যত রকম ভাবে ঝড়ো হাওয়া হলেও নিম্নচাপে পরিণত হলে পরিস্থিতি আরো গুরুতর হতেও পারে। তা আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে তবে এই বুড়ি ঘূর্ণিঝড় সেভাবে প্রভাব না ফেলে। যদি নিম্নচাপে পরিণত না হতো তাহলে অনেক বড় ঝুঁকি থাকত প্রত্যেক মানুষের আর তার জন্যই আগে থেকেই সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছিল। কারণ মানুষের ভাবনার অতীত হয়ে গেছিল তার জন্যই মানুষ এতটা ভয় পায় এখন সামান্য ঘূর্ণিঝড় সামান্য ঘূর্ণিঝড়।

একটি মন্তব্য করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন